১৩, জুলাই, ২০২০, সোমবার | | ২২ জ্বিলকদ ১৪৪১

সৈয়দপুরে স্বেচ্ছাসেবীদের তৎপরতায় আবারো বাল্যবিবাহ আটকালেন এসিল্যান্ড

আপডেট: এপ্রিল ২০, ২০১৯

সৈয়দপুরে স্বেচ্ছাসেবীদের তৎপরতায় আবারো বাল্যবিবাহ আটকালেন এসিল্যান্ড


নীলফামারী প্রতিনিধি:
নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার সকল স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন নিয়ে গঠিত সৈয়দপুর ইউনাইটেড ভলেন্টিয়ার এসোসিয়েশনের (সুভা) সদস্যদের তৎপরতায় আরো একটি বাল্যবিবাহ আটকালেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) পরিমল কুমার সরকার। গতকাল ১৯ এপ্রিল শুক্রবার রাতে উপজেলার বাঙালীপুর ইউনিয়নের লক্ষনপুর জোদ্দারপাড়ায় সুভার সদস্যদের মাধ্যমে বাল্যবিয়ের খবর পেয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) পুলিশ ফোর্স সঙ্গে নিয়ে বিয়ে বাড়িতে উপস্থিত হন। পাত্রীর বয়স ১৮ বছরের কম হওয়ায় তাৎক্ষনিক  বিয়ে বন্ধ করেন। 
সূত্রমতে, দিনাজপুরের চিরিরবন্দর কিশামত ফতেহজংপুরের মৃতঃ আব্দুল হামিদের ছেলে মোঃ রুহুল আমিনের (২৫)  সাথে সৈয়দপুর উপজেলার বাঙালীপুর ইউনিয়নের লক্ষণপুর জোদ্দারপাড়ার আমীর আলীর কন্যা মোছাঃ বিউটি বেগমে (১৬) বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা চলছিল। এসময় সুভার এক সদস্য পাত্রীর পূর্ণ বয়স না হওয়ার খবর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) পরিমল কুমার সরকারকে অবগত করেন। এসিল্যান্ড ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে মেয়ের পূর্ণ বয়সের কোন প্রমাণ না পেয়ে বিয়েটি বন্ধ করেন। 
পরে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭ এর ৭/২ মোতাবেক বাল্য বিবাহ করতে আসার অপরাধে ছেলেকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। সাথেমেযে পক্ষের অভিভাবকরা বিবাহ আয়োজনে নিজেদের ভুল স্বীকার করে মুচলেকা দিয়েছেন। মুচলেকাতে উল্লেখ আছে যে, মেয়ের ১৮ বছর না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা বিবাহের আয়োজন করলে কতৃপক্ষ আইনী ব্যবস্থা নিতে পারবে এতে মেয়ে পক্ষের কোন আপত্তি থাকবে না। এই সময় সুভার সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আমির, সোহেল, জীবন প্রমুখ। 
এর আগে গত ১২ এপ্রিল একই কায়দায় উপজেলার কামারপুকুর আদানী মোড়ে বাল্য বিবাহ বন্ধ করেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) পরিমল কুমার সরকার। এক সপ্তাহের ব্যবধানে এবার বাঙালীপুরে বাল্য বিবাহ বন্ধ করলেন এই সাহসী সরকারী কর্মকর্তা। সহকারী কমিশনার (ভূমি) পরিমল কুমার সরকার জানান, ‘বাল্যবিবাহ নিরোধে উপজেলা প্রশাসন পরিশ্রম করে যাচ্ছে। উপজেলা প্রশাসন তৎপর বলে এক সপ্তাহের মধ্যে দুটি বাল্যবিবাহ রোধ করতে পারলাম আমরা। এক্ষেত্রে সুভার সদস্যরা প্রশাসনকে সার্বিক সহযোগিতা করছে।’