১৯, আগস্ট, ২০১৯, সোমবার | | ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

যোগ্যতা আছে যার,চাকরি হয়েছে তার

আপডেট: জুলাই ৯, ২০১৯

যোগ্যতা আছে যার,চাকরি হয়েছে তার

নাগরপুর (টাংগাইল) তোফাজ্জল হোসেন তুহিন: মাত্র ১০০ টাকায় পুলিশে চাকরি দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়। টাঙ্গাইলে শতভাগ স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে নাগরপুরের দুই মেয়ে সহ মোট  ১৩৬ জনের কনস্টবল পদে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছেন তিনি। সোমবার (০৮ জুলাই) এক প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে এই নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার কথা জানান তিনি।
গত মাসের ১৩ জুন টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জানিয়েছিলেন, একশত টাকায় তিনি পুলিশের কনস্টবল পদে চাকরি দিবেন। যেখানে এখনো কথিত আছে যে, পুলিশের কনস্টবল পদে চাকরি পেতে সর্বনিম্ন দশ লক্ষ টাকা লাগে। সেখােেন টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় প্রমাণ করে দিলেন মানুষের জন্য কাজ করতে, মানুষের ভালো করতে সদ্বিচ্ছাই যথেষ্ট। তিনি তার কথা রেখেছেন। মাত্র ১০০ টাকার একটি ব্যাংক চালান দিয়ে যোগ্য এবং মেধাবীদের চাকরি দিয়েছেন।
পুলিশ সুপার কার্যালয় সূত্র জানায়, টাঙ্গাইলে পুলিশ কনস্টবল নিয়োগের জন্য বিজ্ঞাপন দেওয়ার পর প্রায় ৭০০০ (সাত হাজার) নারী ও পুরুষ প্রার্থী লাইনে দাঁড়ায়। এদের মধ্যে প্রাথমিক বাছাই শেষে শারীরিক মাপ ও শারীরিক পরীক্ষার মাধ্যমে ৭৩৩ জন প্রার্থীকে লিখিত পরীক্ষার জন্য মনোনীত করা হয়। গত ০২ জুলাই অনুষ্ঠিত লিখিত পরীক্ষার উত্তরপত্র মূল্যায়নে ২৫৩ জন প্রার্থী কৃতকার্য হয়। সর্বশেষে শিক্ষানবিশ পুলিশ কনস্টবল (টিআরসি) হিসেবে চূড়ান্ত নিয়োগ পান ১৩৬ জন। এদের মধ্যে সাধারণ পুরুষ-৮১ জন, সাধারণ নারী-২৭ জন, পুরুষ (মুক্তিযোদ্ধা)-১৫ জন, নারী (মুক্তিযোদ্ধা)-০৫ জন, পুলিশ (পোষ্য) পুরুষ-০৫ জন, পুলিশ (পোষ্য) নারী-০১ জন ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্টি পুরুষ-০২ জন।
এ বিষয়ে টাঙ্গাইল জেলার পুলিশ সুপার জনাব সঞ্জিত কুমার রায়, বিপিএম বলেন, পুলিশ কনস্টবল নিয়োগের প্রায় এক মাস পূর্ব থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা, লিফলেট বিতরণ এবং জেলার বিভিন্ন স্থানে ব্যানার টানানো হয়েছে। এবার আর্থিক লেনদেনসহ সব অনিয়ম ও সুপারিশ পরিহার করে সুষ্ঠুভাবে পুলিশ কনস্টবল নিয়োগের বিষয়টি সম্পন্ন করতে ব্যাপক প্রচারণা চালানো হয়। পুলিশ কনস্টবল ভর্তি নিয়ে কড়া নির্দেশনা ছিল মাননীয় আইজিপি মহোদয় এবং ডিআইজি, ঢাকা রেঞ্জ মহোদয়ের। ভর্তি শুরুর আগেই ঘোষণা দিয়েছিলাম “যোগ্যতা আছে যার চাকরি হবে তার, শতভাগ মেধা ও যোগ্যতা ভিত্তিক নিয়োগই টাঙ্গাইল জেলা পুলিশের অঙ্গীকার”।