৩, আগস্ট, ২০২০, সোমবার | | ১৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

ফাও খাবেনা ইবি ছাত্রলীগ!

আপডেট: জুলাই ১৭, ২০১৯

ফাও খাবেনা ইবি ছাত্রলীগ!

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি:
দীর্ঘ ৮ মাস পর নতুন কমিটি পেয়ে প্রাণ ফিরে পেয়েছে  ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) ছাত্রলীগ।  কার্যক্রম স্থগিত থাকাকালীন ঝিমিয়ে পড়া নেতাকর্মীরা উঠেছেন গা ঝাড়া দিয়ে। নতুন নেতৃত্ব সবকিছু শুরু করেছে নতুনভাবে। নবগঠিত কমিটি দায়িত্বগ্রহনের পরপরই নেওয়া কিছু পদক্ষেপ ইতোমধ্যেই প্রশংসা পেয়েছে সর্বমহলে। দায়িত্ব নিয়ে শুরুতেই দলের সংস্কারে হাত দিয়েছেন তারা। এরমধ্যে ক্যাম্পাসের ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ীদের থেকে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের ফাও খাওয়া প্রতিরোধে উদ্যোগ নিয়েছে নতুন কমিটি।

জানা যায়, বুধবার (১৭ জুলাই) সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার  দিকে নতুন কমিটির সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ ও সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবের নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা মটরসাইকেল নিয়ে ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করেন। এসময় তারা ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ীদের সাথে কথা বলে তাদেরকে বাকি ও ফাও খাওয়া নেতাকর্মীদের ব্যাপারে সচেতন করেন।

নেতৃবৃন্দ বলেন, কেউ বাকি নিলে বা ফাও খেতে চাইলে তার দায় সে নিজে নিবে। ছাত্রলীগ এর দায়িত্ব নেবেনা। ছাত্রলীগকর্মী পরিচয় দিয়ে কেউ ফাও খেতে পারবেনা। কেউ জোর করলে সে ব্যাপারে নেতাদেরকে জানানোর কথাও বলেন তারা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন  ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ী জানান, ‘ক্যাম্পাসে ফাও খাওয়া ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের একটি স্বাভাবিক বৈশিষ্টে পরিণত হয়েছিল।  কোনো কোনো দোকানে ৫ হাজার থেকে শুরু করে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত বাকি আছে ছাত্রলীগ নেতাদের নামে। যেটি আমাদের মতো ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ীদের জন্য খুব কষ্টের।’

ব্যাবসায়ীরা এই টাকা আদেও পাবেন না বলেও জানান প্রতিবেদককে। তবুও বাধ্য হয়েই তাদেরকে বাকি দিতে হতো। ফাও খাওয়া প্রতিরোধে নতুন কমিটির এই উদ্যোগে সন্তোস প্রকাশ করেছেন এই সকল ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ীরা। সেইসাথে এর বাস্তবায়নে নতুন কমিটি যথাযথ ভূমিকা পালন করবে বলে প্রত্যাশা তাদের।

এবিষয়ে শাখা ছাত্রলীগের  সভাপতি রবিউল ইসলাম পলাশ বলেন বলেন, ‘আমাদের এটা একটা বদনাম আছে সত্য। আমরা এটা মেনে নিয়েছি। আমরা সব দোকানেই বলে দিয়েছি যেন কেউ ফাও খেতে না পারে।’

মুনজুরুল ইসলাম নাহিদইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া