১৯, আগস্ট, ২০১৯, সোমবার | | ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

মির্জাপুরে সদরের বারু খালটি এখন বসত বাড়ীতে পরিণিত

আপডেট: আগস্ট ৪, ২০১৯

মির্জাপুরে সদরের বারু খালটি এখন বসত বাড়ীতে পরিণিত

রাজু আহমে,মির্জাপুর প্রতিনিধি \ মির্জাপুর পৌর সদরের ওপর দিয়ে প্রবাহিত একমাত্র খাল বারু খালটি এখন দখলের চরম পর্যায়ে উঠেছে। দখলবাজরা খালটির কিনারা দখল শেষ করে এখন পুরু খালটি গিলে খাওয়ার চেষ্টা করছে। অব্যাহত রয়েছে পৌরসভার একমাত্র জলাধারটির কিনারা ও তলদেশ দখল করে ঘরবাড়ি নির্মাণ। জনগুরুত্বপূর্ণ খালটির দখল অব্যাহত থাকলেও স্থানীয় প্রশাসন এবং পৌরসভা কর্তৃপক্ষ খালটি দখলমুক্ত করতে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেনা বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেছেন। এখন সবার প্রশ্ন কবে দখলমুক্ত হবে মির্জাপুর সদরের বারু খালটি।

জানা গেছে, মির্জাপুর উপজেলা সদরের মাঝদিয়ে প্রবাহিত বারু খালটি লৌহজং ও বংশাই নদীর একমাত্র সংযোগ খাল। এক সময় খালটি দিয়ে বড় বড় জং নৌকা চলতো। বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে নৌকা যোগে মির্জাপুর বাজার ও হাটে আসার এই খালটি ছিল অত্র এলাকার মানুষের একমাত্র ভরসা। এছাড়া বর্ষায় দূর দূরান্ত থেকে রোগীরা খালটি দিয়ে নৌকা যোগে কুমুদিনী হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য থানা ঘাটে আসতেন। ৮০’র দশকেও বর্ষা মেীসুমে থানা সংলগ্ন খালটির ধারে প্রতিবছর বিপুল সংখ্যক নারিকেল ভর্তি বড় বড় জং নৌকা সারি সারি বাঁধা থাকতো।

অন্যদিকে খাল সংলগ্ন বাইমহাটী গ্রামের মৃৎশিল্পীরা নৌকা ভর্তি করে এই খালটি দিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে মাটির তৈরী হাড়ি পাতিল বিক্রী করতে যেতেন। কিন্তু সদরের একমাত্র জনগুরুত্বপূর্ণ খালটি দখল হয়ে যাওয়ায় ভরা বর্ষায়ও খালের প্রবাহ বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে খালটি এলাকার মানুষের কোন কাজে আসছেনা।

এলাকার কতিপয় প্রভাবশালী দখলবাজরা বছরের পর বছর ধরে খালের জায়গা দখল করে ঘরবাড়ি নির্মাণ অব্যাহত রেখেছে। অনেক দখলবাজ জাল জালিয়াতি করে কাগজপত্র তৈরী করে খালের জায়গা বিক্রী করে কোটি কোটি টাকা কামিয়ে নিচ্ছে বলে জানা গেছে।

এদিকে অবৈধ দখলবাজরা খালের জায়গা দখল করে পাকা ঘরবাড়ি নির্মাণ অব্যাহত রাখলেও স্থানীয় প্রশাসন ও পৌর কর্তৃপক্ষ জনগুরুত্বপূর্ণ বারু খালটি দখলমুক্ত বা উদ্ধারের কোন উদ্যোগ নিচ্ছেনা।

মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল মালেকের সঙ্গে যোযাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বারুখালটি মির্জাপুর পৌর শহরের মাঝদিয়ে বয়ে গেছে। এই খালের দখলবাজদের উচ্ছেদ করতে পৌর মেয়রের সহযোগিতা লাগবে। এছাড়া খালটি উদ্ধারের জন্য সীমানা পরিমাপ করে লাল নিশান পুতা হয়েছিল। দখলবাজদের তালিকা করে শীঘ্রই খালটি দখলমুক্ত করা হবে বলে তিনি জানান।

মির্জাপুর পৌর মেয়র সাহাদৎ হোসেন সুমন বলেন, খালটি পৌরবাসীর জন্য ব্যবহার যোগ্য করে তোলার জন্য এবং প্রাতঃভ্রমনকারীরা যাতে খালের কিনারা দিয়ে হাটাচলা করতে পারেন সেজন্য অর্থবরাদ্দ চেয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে একটি প্রকল্প পাঠানো হয়েছে। প্রকল্পটি অনুমোদন হলে খাল উদ্ধারে কাজ করবেন বলে তিনি জানান।