২১, এপ্রিল, ২০২১, বুধবার | | ৯ রমজান ১৪৪২

আমতলীতে জমি নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত-১৫,আটক-৭

আপডেট: আগস্ট ১৫, ২০১৯

আমতলীতে জমি নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত-১৫,আটক-৭

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি।।

আমতলী উপজেলার চলাভাঙ্গা গ্রামে জমি নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে ১৫ জন আহত হয়েছে। গুরুতর আহত ৭ জনকে সংঙ্কটজনক অবস্থায় বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনার সাথে জড়িতের সন্দেহে পুলিশ ৭ জনকে আটক করেছে। ঘটনা ঘটেছে বৃহস্পতিবার সকালে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার চলাভাঙ্গা গ্রামের মজনু হাওলাদার ও হানিফ প্যাদার মধ্যে ২৭ একর জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে গত ১০ বছর ধরে বরগুনা আদালতে মামলা চলছে। বৃহস্পতিবার সকালে ওই জমিতে হানিফ প্যাদা ও তার লোকজন চাষাবাদ করতে যায়। এ সময় মজনু হাওলাদার ও তার লোকজন এতে বাঁধা দেয়। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। এক পর্যায় উভয় পক্ষ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে। দফায় দফায় ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ১৫ জন আহত হয়েছে। আহতদের স্বজনরা উদ্ধার করে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। ওই হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক সংঙ্কটজনক অবস্থায় গুরুতর আহত মজনু হাওলাদার, গেন্দু বয়াতি, সামসু, মোশাররফ হোসেন, আকব্বর প্যাদা,খবির প্যাদা ও হানিফ প্যাদাকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরন করেছে। খোকন ও মাসুম বিল্লাহকে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। অপর আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে পুলিশ সাইফুল ইসলাম, মাসুম মিয়া, খোকন হাওলাদার, মাসুম দফাদার, ফোরকান প্যাদা, জাকারিয়া ও আবদুল রহিম প্যাদা নামের ৭ জনকে আটক করেছে।

মজনু হাওলাদারের বাবা খোরজেন হাওলাদার বলেন, হানিফ প্যাদা আমার ৪ একর জমি দীর্ঘদিন ধরে জোড়পূর্বক ভোগদখল করে আসছে। ওই জমি নিয়ে আমি আদালতে মামলা করেছি। আদালতের রায় আমার পক্ষে আসার পরও সে জমি আমাকে বুঝিয়ে দিচ্ছে না। বৃহস্পতিবার আমার ওই জমিতে সে (হানিফ প্যাদা) জোরপূর্বক চাষাবাদ করতে যায়। এ সময় আমার লোকজন বাঁধা দিলে তারা আমার পক্ষের ৮ জনকে কুপিয়ে আহত করেছে। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

আহত রহিম প্যাদার স্ত্রী খাদিজা বলেন, মজনু হাওলাদার ও তার ১৫/২০ জন সহযোগী নিয়ে আমাদের বাড়ীতে এসে ৭ জন কুপিয়ে আহত করেছে। আমরা এ ঘটনার বিচার চাই।

আমতলী থানার ওসি মোঃ আবুল বাশার বলেন, ঘটনার সাথে জড়িত থাকার সন্দেহে সাত জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।