২২, জানুয়ারী, ২০২০, বুধবার | | ২৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

কুমিল্লা মুরাদনগরে আল্লাহর ৯৯ নাম খচিত দৃষ্টিনন্দন স্হাপত্যটি আগামী ০৭ই সেপ্টেম্বর শুভ উদ্বোধন এবং আলোচনা সভা ও দোয়ার আয়োজন

আপডেট: সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৯

কুমিল্লা মুরাদনগরে  আল্লাহর ৯৯ নাম খচিত দৃষ্টিনন্দন স্হাপত্যটি আগামী ০৭ই সেপ্টেম্বর শুভ উদ্বোধন এবং আলোচনা সভা ও দোয়ার আয়োজন

মোঃ খোরশেদ আলম( কুমিল্লা জেলা প্রতিনিধি, দৈনিক সময়ের কণ্ঠ)ঃ

কুমিল্লার মুরাদনগরে আগামী ০৭ই সেপ্টেম্বর রোজ শনিবার বিকাল ০৫-ঘটিকায় মহান আল্লাহর (৯৯ গুন বাচক নামের) ভাস্কর্যটি শুভ উদ্বোধন হতে যাচ্ছে এবং এ উপলক্ষে মুরাদনগর বাস টার্মিনাল মাঠ প্রাঙ্গণে আলোচনা সভা ও দোয়ার আয়োজন করা হবে।উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন কুমিল্লা -৩ মুরাদনগরের গন মানুষের অত্যন্ত প্রিয় মুখ,নন্দিত জননেতা মাননীয় সাংসদ আলহাজ্ব ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুন(এফসিএ)মহোদয়।মুরাদনগর উপজেলা সদরের বাসস্ট্যান্ডের পূর্বপাশের তিন রাস্তার মোড়ে খোদাই করে মহান আল্লাহ তায়ালার গুণবাচক ৯৯ নাম খচিত দৃষ্টিনন্দন স্হাপত্য এখন এ চত্বরের আকর্ষণ। যার ফলে দিনদিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে মুরাদনগর উপজেলা সদরের বাসস্ট্যান্ড।

সম্প্রতি আওয়ামী লীগ কেন্দ্রিয় কমিটির সাবেক অর্থ ও পরিকল্পনা বিষয়ক সম্পাদক এবং এফবিসিসিআই’র সাবেক সভাপতি স্থানীয় সংসদ সদস্য ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুন এফসিএ’র উদ্যোগে এ স্হাপত্য স্থাপন করা হয়েছে।

স্হাপত্য স্থাপনকৃত এ চত্বরটির কোন নাম দেয়া হয়নি এখনো। চত্বরটির মাঝখানে সু-বিশাল একটি পিলারে চারপাশে খোদাই করে লেখা হয়েছে আল্লাহর ৯৯টি নাম এবং চূড়ায় বড় করে লেখা হয়েছে “আল্লাহু”।

মোটামুটি দূর থেকেই মুরাদনগর উপজেলা সদরের বাসস্ট্যান্ডে ঢুকা মাত্রই এটি চোখে পড়ে। তাই প্রতিদিনই দূর-দূরান্তের যাত্রীসহ ড্রাইভাররা গাড়ি থামিয়ে এক পলক চোখ বুলিয়ে নিচ্ছেন সুদৃশ্য এ স্হাপত্যতে এছাড়াও প্রতিদিনই বাড়ছে ভাস্কর্যটির পাশে দর্শনার্থীদের ভীড়।

বাসস্ট্যান্ডের পাশে চত্বরটি গড়ে উঠায় উপজেলা সদর এখন আরও জনপ্রিয় ও আকর্ষণীয় হয়ে উঠেছে। যার প্রশংসা রয়েছে এলাকাবাসী, পথচারী ও দর্শনার্থীদের মুখে মুখে। পুড়ো কুমিল্লা জেলায় আল্লাহর নামে স্থাপিত এই চত্বরটি সবচেয়ে সেরা চত্বর এবং চত্বরটি স্থানীয় সংসদ সদস্য ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুনের উত্তম কাজের একটি মাইল ফলক হয়ে থাকবে বলেও বিশ্বাস স্থানীয় এলাকাবাসীর।

চত্বরটির নাম না দেয়া প্রসঙ্গে স্থানীয় সংসদ সদস্য ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন বলেন, এখনো আরো কয়েক দিন লাগবে পুরোপুরি চত্বরটির কাজ শেষ হতে। কাজ শেষ হলেই এলাকার মুরব্বিদেরকে সাথে নিয়ে চত্বরটির নাম ঠিক করা হবে।