২৮, জানুয়ারী, ২০২০, মঙ্গলবার | | ২ জমাদিউস সানি ১৪৪১

জীর্ণ-শীর্ন ঘরে শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্য্যক্রম ব্যাহত

আপডেট: অক্টোবর ৩, ২০১৯

জীর্ণ-শীর্ন ঘরে শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্য্যক্রম ব্যাহত

কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি, ঃ কলাপাড়ায় ঝুকি নিয়ে চলছে জরাজীর্ণ টিনশেড ঘরে দাখিল মাদ্রাসায় শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্য্যক্রম। সামান্য বৃষ্টি হলেইে পানি পরে কর্দমাক্ত হয়ে যায়। ভিজে যায় শিক্ষার্থীদের পাঠ্য বই। এমন বেহাল দশা টিয়াখালী ইউনিয়নের রজপাড়া দ্বীন-ই-এলাহী মাদ্রাসার। এর ফলে ওই মাদ্রাসা’র শিক্ষার্থীর সংখ্যাও দিন দিন কমে যাচ্ছে।

মাদ্রাসা সূত্রে জানা গেছে, ২০০১ সনে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর থেকে নির্মিত ৩ কক্ষ বিশিষ্ট ১তলা ভবনটির দেয়ালে ফাটল দেখা দেয়। এছাড়া ঘর্নিঝড় সিডর, আইলা ও ফনির আঘতে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হয়। বৃষ্টি হলেই ভবনটির ছাদ থেকে পানি চুবিয়ে ক্লাশে ঢুকে যায়। এর ফলে ৮টি শ্রেণির পাঠদান কার্যক্রম চলছে পাশের একটি জরাজীর্ণ টিনশেড ঘরে। সেটির অবস্থাও বেহাল। অধিকাংশ টিন মরিচা পরে নষ্ট হয়ে গেছে। এদিকে ক্লাশ চলাকালীন সময় বৃষ্টির পানি পরে বই, খাতা, ব্যাগ ভিজে যায়। এমন অবস্থার মধ্যেই তাদের ক্লাস করতে হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা।

এ ব্যাপারে মাদরাসার সুপারিনটেনডেন্ট এ.বি.এম হাবিবুর রহমান বলেন, মাদ্রাসাটিতে বর্তমানে ১০টি শ্রেণীতে প্রায় ৪ শত শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত রয়েছে। বৃষ্টির দিনে জরাজীর্ন টিনশেড ঘরে পাঠদানে খুবই অসুবিধা হচ্ছে। এছাড়া মাদ্রাসা বিল্ডিং ভবনের দেয়ালে ফাটল দেখা দিয়েছে।

ওই মাদ্রাসার সভাপতি সৈয়দ আখতারুজ্জামন কোক্কা জানান, মাদ্রাসার টিনশেড ঘরটি জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। বৃষ্টি হলেই শিক্ষার্থীদের সমস্যায় পরতে হয়। এ জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মো.মনিরুজ্জামান জানান, ঘুর্নি ঝড় ফনিতে যে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে তার তালিকা করে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দিয়েছি। তবে এখন পর্যন্ত কোন বরাদ্ধ আসেনি।