১৬, ডিসেম্বর, ২০১৯, সোমবার | | ১৮ রবিউস সানি ১৪৪১

ঘুষ-দুর্নীতি ও নৈতিক অবক্ষয়ের প্রতিবাদে কক্সবাজার জেলার ডিসিকে স্মারকলিপি প্রদান

আপডেট: অক্টোবর ১০, ২০১৯

ঘুষ-দুর্নীতি ও নৈতিক অবক্ষয়ের প্রতিবাদে কক্সবাজার জেলার ডিসিকে স্মারকলিপি প্রদান

আজ ৯ আক্টোবর বিকাল ৩ টায় কক্সবাজার জেলা প্রশাসককে স্বারকলিপি প্রদান করেন, সাথে আছেন জেলার সাথে আছেন উমর ফারুক আজাদ , রবিউল হাসান,সাফওয়ান অাল অাজিজ , মোঃ হোসাইন, অালমগীর ,  সাইফুল ইসলাম , শাখাওয়াত,  মোঃ জিসান ,  জাহেদ সহ    স্বারকলিপিতে হানিফ বলেন স্বাধীনতার অর্ধশতাব্দী যাবৎ রাজনৈতিক দলগুলো যে যখন রাষ্ট্র ক্ষমতায় এসেছে, সে দলই ঘুষ-দুর্নীতি নৈতিক অবক্ষয়ে নিমজ্জিত ছিল। যাহা আজ আরো চরম আকার ধারণ করেছে। সমাজ, রাষ্ট্র সর্বত্রই ঘুষ-দুর্নীতি, সামাজিক, মানবিক, পারিবারিক মূল্যবোধের অবক্ষয় চলছে। গুজব ছড়িয়ে নিরীহ মানুষকে হত্যা করা হচ্ছে। ছোট ছোট মেয়েদেরকে ধর্ষণের পর নির্মমভাবে হত্যা করা হচ্ছে। তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে একে অন্যকে কুপিয়ে হত্যা করছে। নারী-শিশু নির্যাতন মহামারী আকার ধারণ করেছে। পরস্পর দোষারোপ ও প্রতিহিংসার রাজনীতি অবক্ষয়কে আরো বাড়িয়ে দিচ্ছে। চলমান দুর্বৃত্তায়িত রাজনীতির অবসান হলে, সর্বক্ষেত্রে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হলে, প্রতিটি নাগরিক তার দায়িত্ব-কর্তব্য সম্পর্কে সচেতন হলে, অন্যায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার হলে ঘুষ-দুর্নীতি কমবে,এবং মূল্যবোধের উন্নতি হবে। প্রজাতন্ত্রের কর্মচারি হিসাবে জেলা প্রশাসক সর্বোচ্চ  ক্ষমতাধর ব্যক্তি তিনি দলমত নিবিশেষে সকল বাধা বিপত্তি উপেক্ষা করে আইনের প্রতি শ্রদ্ধানশীল এর সঠিক প্রয়োগ করলে ঘুষ-দুর্নীতি অবক্ষয় নির্মূল সম্ভব। দেশবাসীর প্রতি আহ্বান আসুন দেশপ্রেমের দায়বদ্ধতায় অন্যায়ের বিরুদ্ধে এবং অধিকার প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ হই।উল্লেখ্য, ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠার দাবিতে হানিফ বাংলাদেশী গত ১৪ মার্চ’ ১৯ থেকে ১২ এপ্রিল’ ১৯ পর্যন্ত টেকনাফ থেকে তেঁতুলিয়া প্রায় ১০০৪ কি: মি: একক পদযাত্রা করেন এবং ৬ মে’ ১৯ নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগের দাবিতে পঁচা আপেল নিয়ে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন ও ভোটাধিকারের দাবিতে সংসদ ভবনের সামনেও অবস্থান নিয়েছিলেন।