২২, জানুয়ারী, ২০২১, শুক্রবার | | ৮ জমাদিউস সানি ১৪৪২

আচমকা বিদ্যালয় পরিদর্শনে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার

আপডেট: অক্টোবর ১৬, ২০১৯

আচমকা বিদ্যালয় পরিদর্শনে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার


আব্দুল আলীম, চৌগাছা প্রতিনিধিঃ যশোরের চৌগাছায় হঠাৎ সম্মিলনী মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন করলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আবুল কালাম রফিকুজ্জামান। মুগ্ধ হলেন বিদ্যালয়ের সামগ্রিক কার্যক্রম ও পরিপাটিতে। এমনটিই জানালেন মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার নিজেই। 
আজ বুধবার সকাল সাড়ে ১০ টায় চৌগাছা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার না বলে হঠাৎ সম্মিলনী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ধূলিয়ানীতে অবস্থান করেন। শিক্ষকগণ যদিও শিক্ষা অফিসারকে হঠাৎ দেখে একটু ইতস্ততঃ বোধ করছিলেন। কিন্তু আভাস না দিয়ে এসেও বিদ্যালয়ের সামগ্রিক পরিবেশ দেখে মুগ্ধ হয়েছিলেন তিনি। প্রথমে তিনি বিদ্যালয়ে পৌছে এসএসসি-২০২০ ব্যাচের টেস্ট পরীক্ষার হল, মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, চলমান শিক্ষার্থীদের ক্লাসরুম পরিদর্শন ও শিক্ষার্থীদের সাথে ক্লাসে ক্লাসে মতবিনিময় করেন। তারপর দুপুর ১ টা ৩০ মিনিটে বিদ্যালয়ের শিক্ষক মিলনায়তনে আলোচনায় বসেন। এসময় শিক্ষা অফিসারের উপস্থিতিতে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এম এম মহব্বত আলী, সহকারী প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম, সিনিয়ার শিক্ষক আব্দুল আজিজ, কুব্বোত আলী, অসীম কুমার দে, মোমিনুর রহমান, বেগম আক্তার, রহিমা খাতুন, সহকারি শিক্ষক কামারুজ্জামান, ফারুক হোসেন, নিপুন কুমার বাপ্পী, আমেনা খাতুন, আশরাফুল আলম, শিক্ষক ও সাংবাদিক আব্দুল আলীম, মোতাহার আলী, তুহিন হোসেন, আব্দুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।
শিক্ষক মিলনায়তনে সবার উপস্থিতিতে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আবুল কালাম রফিকুজ্জামান বলেন বিদ্যালয়ের পরিবেশ, অবকাঠামো, নিয়ম-কানুন, সবই আমাকে মুগ্ধ করেছে। সাথে সাথে তিনি শিক্ষকদের শিক্ষা দানের বিষয়ে অবগত করে বলেন ইংরেজী শিক্ষকদের শিক্ষার্থীদের প্রতি সচেতন থেকে কৌশল অবলম্বন করে শেখাতে হবে। শিক্ষার্থীরা একে অপরের সাথে ইংরেজীতে কথোপকথন চালাতে পারবে এমনটায় গড়তে হবে। প্রয়োজনে তাদেরকে দলে বিভক্ত করে প্রাকটিস করাতে হবে। যেনো তারা ইংরাজীতে একে অপরের সাথে কথা বলার যোগ্যতা অর্জন করতে পারে। এছাড়াও শিক্ষকদেরকে ডিজিটাল কন্টেন্টের মাধ্যমে মাল্টিমিডিয়া ক্লাস পরিচালনায় আগ্রহী হতে হবে। মনে রাখতে হবে এসডিজি-৩ হলো হেলথ পর্যায় যা শিক্ষকদের বাদে বাস্তবায়ন সম্ভব নয়। মানসম্মত শিক্ষা, উন্নত শিক্ষা, ছাড়া দেশের উন্নয়ন সম্ভব না। পুরা জাতি আমাদের উপর নির্ভরশীল। সুতরাং শিক্ষা ব্যবস্থাটাকে সেভাবেই গড়ে তোলাটা আপনাদের উপর নির্ভর করছে। তাই পুরাতনকে ছেড়ে পরিবর্তন আনা দরকার। যেমন চলা, বলা, অঙ্গভঙ্গি সবই হতে হবে আধুনিক, পরিপাটি। সকল ক্ষেত্রেই শিক্ষকদের পরিবর্তন আনতে হবে। আরও মনে রাখতে হবে শিক্ষার্থীদেরকে স্মার্ট করে গড়তে হবে। সুতরাং তাদেরকে স্মার্ট করতে হলে নিজেদেরকেও স্মার্ট হতে হবে। 
তিনি আরও বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে উপজলায় ধূলিয়ানী স্কুলের প্রশংসা করি। আর সেই প্রশংসা পাবার মূল দাবিদার তো আপনারাই। সুতরাং আপনাদেরকে চেষ্টা করতে হবে আরও ভালো করার। আর আমি চেষ্টা করবো বিদ্যালয়ের প্রতি সুনজর রাখার। সামনের দিনগুলোতে প্রশিক্ষণে বিদেশে গমনের সুযোগ আছে। আপনারা চেষ্টা করেন সেই সুযোগ পাওয়ার। 
সবশেষে তিনি বলেন দেশের চলতি কার্যক্রম দেখলে এটা আশা করা যায় জাতীয়করণের। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন কার্যক্রম যেনো অব্যাহত থাকে। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার স্বপ্ন যেনো স্বার্থক হয় আমরা এই কামনায় করবো।