১৭, নভেম্বর, ২০১৯, রোববার | | ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

প্রবাসে মুজিব আদর্শের সৈনিক জি, আর মানিক

আপডেট: অক্টোবর ২২, ২০১৯

প্রবাসে মুজিব আদর্শের সৈনিক জি, আর মানিক

দেশ থেকে বহুদূরে থাকেন প্রবাসীরা। তারপরও শত ব্যস্ততার মাঝে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারন এবং লালন করেন। কথা বলেন মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে। তাদের মধ্যে একজন জি আর মানিক। পুরো নাম গোলাম রাসুল মানিক। ইতালির রোমে থাকেন প্রায় এক যুগ ধরে। তিনি একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। ব্যবসার পাশাপাশি প্রবাসে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে কাজ করছেন। যেখানেই বঙ্গবন্ধু নাম শুনেন সেখানেই হাজির হন তিনি। রোম মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন সাবেক এই ছাত্রনেতা। বর্তমানে নব গঠিত ইতালি আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক। প্রবাসের মাটিতে একজন বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর। ময়মনসিংহ বিভাগের কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব উপজেলার ছোট তুলা কান্দি গ্রামে তার মুনসি বাড়ি। বাবা মোঃ ছত্তার ছিলেন সেনাবাহিনীর  ডিফেন্স ইঞ্জিনিয়ার ল্যান্সনায়ক। বাবার মুখ থেকে সব সময় বাংলাদেশের, মুক্তিযোদ্ধ  বঙ্গবন্ধুর জীবনী সমন্ধে শুনত। আওয়ামী লীগ এর ইতিহাস শুনে রাজনীতি পথ চলা শুরু তার।

তার বাবা ১৯৬৯ সালে কাদিরাবাদ সেনানিবাস, রাজশাহীতে যোগদান করেন। জি আর মানিকের বাবা সেনাবাহিনীতে থাকা কালিন জয় এবং সংবিধান নামক দুটি পদক অর্জন করেন।১৯৭১ যুদ্ধের সময় পাকিস্তান করাচিতে বন্দি ছিলেন তিনি। 
জি আর মানিকের বাব দাদার পৈতিক সম্পত্তি ভৈরব হলেও তিনি জন্মগ্রহন করেন ঢাকার মিরপুরে। লেখা পড়া করেন হযরত শাহ্ আলী মডেল হাই স্কুল ও কলেজ এবং মিরপুর সরকারি বাঙলা কলেজে। ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগ মিরপুর ১০নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সদস্য ছিলেন। বর্তমানে স্ত্রী সন্তান নিয়ে স্থায়ী ভাবে বসবাস করেন প্রাচীন শহর রোমে। তবে সময় পেলেই দেশ মাতৃকার টানে ছুটে যান বাংলাদেশে। তিনি বলেন যে দেশের জন্য বাবা পাকিস্তানে জেল খেটেছেন ,যে দেশে বঙ্গবন্ধুর মত নেতা জন্মেছেন ,যার ঘোষনার মধ্যে দিয়ে স্বাধীনতার সপ্ন দেখেছিল মুক্তিযোদ্ধারা সেই দেশে ছুটে যেতে মন চায় বারবার। মানবতার নেত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ তিনি সব সময় প্রবাসীদের পাশে থাকতে বলেন তাই যে কোন নির্বাচনের সময় ছুটে যাই দেশে।তবে এখন সময় এসেছে প্রবাসে ঐক্যবদ্ধ হয়ে বিএনপি জামাতের ষড়যন্ত্র রুখতে হবে। শুদ্ধি অভিযান চালাতে অনুপ্রবেশকারী ও হাইব্রীডদের বিরুদ্ধে। খুজেঁ বের করতে যারা প্রবাসে আওয়ামী লীগের পদ নিয়ে দালালী করে এবং জামাত বিএনপির সাথে আতাত করে চলে।