২৫, জানুয়ারী, ২০২০, শনিবার | | ২৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

সড়ক পরিবহন আইন মেনে চলুন নিরাপদে বাড়ি ফিরুন এই স্লোগান নিয়ে সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে মৌলভীবাজারে পুলিশের লিফলেট বিতরন

আপডেট: নভেম্বর ৬, ২০১৯

সড়ক পরিবহন আইন মেনে চলুন নিরাপদে বাড়ি ফিরুন এই স্লোগান নিয়ে সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে মৌলভীবাজারে পুলিশের লিফলেট বিতরন

মোঃ জাকির হোসেনঃ জেলা প্রতি নিধি। মৌলভীবাজার।  মৌলভীবাজারে সড়ক পরিবহন আইন মেনে চলুন নিরাপদে বাড়ী ফিরুন। পুলিশের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য নয়, নিজের নিরাপত্তার জন্যে হেলমেট ব্যবহার করুন। কিন্তু যারা সড়ক পরিবহন আইন মানবেন না, দিতে হবে অনেক জরিমানা অথবা যাইতে পারেন জেলখানা। আইনকে অপরাধীরাই ভয় পাবে এটাই স্বাভাবিক।এই আইন সড়কে অনেক শৃঙ্খলা ফিরে আনবে ও সাধারন মানুষ উপকৃত হবে।
১ নভেম্বর থেকে কার্যকর হয়েছে সড়ক পরিবহন আইন। এই আইনে যথাযথ বাস্তবায়ন করতে সর্বাত্মক চেষ্টা কররে প্রশাসন। এমনটাই আশাবাদী জনসাধারণ। কার্যকর হওয়া আইন সম্পর্কে সকলকে স্পষ্ট ধারণা দিতে সংবাদ মাধ্যমসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা চালানো হচ্ছে।
সড়ক পরিবহন আইন কেবল যাত্রী নয় সকলের জন্য চালক পথচারী সবার জন্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা করবে।জানতে হবে আইন সম্পর্কে এবং মানতে হবে নিজেকে নিরাপদ রাখতে। পরিবার পরিজনের কাছে সুস্থ অবস্থায় ফিরে আসতে কার্যকরী আইন মানতে এবং এই আইনের উপকারিতা সম্পর্কে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পুলিশ ইন্সপেক্টর মোহাম্মদ সালাউদ্দিন কাজল নিজ ফেইসবুক আইডি থেকে পোস্ট করেছেন জনস্বার্থে।” ইন্সপেক্টর মোহাম্মদ সালাউদ্দিন কাজল এর ফেইসবুক পোস্ট “সড়ক পরিবহন আইনের উপকারিতা জেনে নিন এবং অন্যকে জানিয়ে দিন।১)সড়কে জীবন অধিকতর নিরাপদ হলো!২)লাইসেন্সবিহীন অদক্ষ চালক রাস্তায় থাকবেনা,তাই সড়কে আপনার জীবনের ঝুঁকি কমে গেল।৩) ফিটনেসবিহীন, লক্কর ঝক্কর গাড়ি রাস্তায় চলবেনা তাই ভালো গাড়িতে ভ্রমন করার সুযোগ পাবেন।৪)আপনি যদি পরিবহন ব্যবসায়ী হোন,তবে আপনার জন্য আরো সুখবর।আগে আপনার বৈধ ট্রাক,পিকআপ,বাস দিয়ে যে টাকা উপার্জনকরতেন,এখন তার চাইতে বেশি আয় হবে।কারণ এখন থেকে ফিটনেসবিহীন, অবৈধ ট্রাক,বাস,নসিমন করিমন আপনার ব্যবসায় আঘাত আনতে পারবে না।৫) পেশাদার চালকদের জন্য সুখবর।আগে একটি ট্রিপ দেওয়ার পর অনেক ক্ষন অপেক্ষা করা লাগতো যাত্রীর জন্য কিংবা আপনার সিরিয়াল আসতে সময় নষ্ট হতো।এখন আপনি অল্প সময়ে আপনার উপার্জনের লক্ষ্যে পৌছে, হাসিমুখে ঘরে ফিরে পরিবারকে সময় দিবেন।৬) ট্রাক চালক ভাইদের জন্য সুখবর।আগে কিছু কিছু ট্রাক ওভারলোডিং করে আপনার ট্রিপের মালামাল নিয়ে নিতো।এখন আর সেই সুযোগ নাই,আপনি ঘরে বসে থেকেই কোন প্রতিযোগীতা না করেই ট্রিপ পাওয়ার নিশ্চয়তা থাকবে।৭) ওভার লোডিং এর কারণে রাস্তা নষ্ট হয়।এতে সবার দূর্ভোগ বাড়ে।কাজেই এই আইন কার্যকর হলে রাস্তাও সুরক্ষিত থাকবে,জনদূর্ভোগও কমবে।৮)রাস্তার দুইপাশে অবৈধ স্থাপনা থাকবেনা,এতে কোন গাড়ি যদি রাস্তা থেকে নেমে যায় তবুও ক্ষয়ক্ষতির সম্ভাবনা অাগের চাইতে অনেক কম।অবৈধ স্থাপনার জন্য যানজট তৈরি হয় বিধায় দূর্ভোগ পোহাতে হতো,এখন আর তা হবে না৯) অভিবাবকদের জন্য আরো সুখবর!আপনার সন্তান যদি অপ্রাপ্ত বয়স্ক হয়,তবে আপনার ইচ্ছার বিরুদ্ধে, আপনার বুকে ছুরি ধরে, গাড়ি কেনার জন্য বায়না ধরবে না।যেহেতু বেপরোয়া গাড়ি চালাতে পারবে না,সেহেতু অপ্রাপ্ত বয়স্ক দুষ্ট প্রকৃতির ছেলেরাও গাড়ি নিয়ে বের হওয়ার আগ্রহ পাবে না।১০) হেলমেট পরিধান করতে হবে বিধায় ইয়াং ছেলেরা লোক দেখানো বাইক চালানোর আগ্রহ হারাবে।মোটরবাইক দিয়ে ইভটিজিং এর মত ঘটনা হ্রাস পাবে।তাই আইনকে সম্মান করি,নিরাপদ সড়ক গড়ি।