২১, এপ্রিল, ২০২১, বুধবার | | ৯ রমজান ১৪৪২

কমলগঞ্জে দুই গৃহবধূ গণধর্ষনের শিকার হাসপাতালে ভর্তি, মূলহোতা সিএনজি চালক ইউসুফসহ আটক ৭

আপডেট: ডিসেম্বর ২১, ২০১৯

কমলগঞ্জে দুই গৃহবধূ গণধর্ষনের শিকার হাসপাতালে ভর্তি, মূলহোতা সিএনজি চালক ইউসুফসহ আটক ৭

মোঃ জাকির হোসেনঃ বিশেষ প্রতিনিধি।    

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জের দেওরাছড়া এলাকায় সিএনজি চালক ইউসুফের সহযোগিতায় দুই গ্রহবধূ গণধর্ষনের শিকার হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। পুলিশ তাৎক্ষনিক অভিযান চালিয়ে ৭ জনকে আটক করেছে।
শুকবার রাতে মৌলভীবাজার থেকে কমলগঞ্জের মুন্সিবাজারে যাবার পথে পথিমধ্যে সিএনজি চালকের সহযোগিতায় গণধর্ষনের শিকার হন দুই গৃহবধূ। রাত সোয়া তিনটার দিকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হন। নির্যাতিতরা জানান, বাড়িতে যাবার জন্য একটি সিএনজি অটোরিক্সা রিজার্ভ করে পৌরসভার সামন থেকে মুন্সিবাজারের উদ্যেশ্যে রওয়ানা করেন দু’জন। তাদের একজনের সাথে একটি শিশু বাচ্চাও ছিল। প্রধান সড়ক দিয়ে না গিয়ে ফাড়ি পথে সিএনজি নিয়ে গেলে তারা প্রতিবাদ জানালে রাস্তা খারাপের অজুহাত দেখায়। কিছু দুর যাবারপর কালেঙ্গা নামক জায়গা থেকে আরও দু’জনকে চালক গাড়িতে তুলে, এতেও তারা প্রতিবাদ জানায়। কিছু দুর যাবার পর পিছনে আরেকটি সিএনজি অটোরিক্সার আলো দেখেন তারা। এক পর্যায়ে চালকসহ অণ্যরা দেওরাছড়া চা বাগানের নির্জনস্থানে নিয়ে দুইজনকে গণধর্ষন করে পাসন্ডরা। তাদের একজনের সাথে দুইজন ও অন্য জনের সাথে ৫ জন ধর্ষন করে। বর্তমানে তারা মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এদিকে পুলিশ রাতেই অভিযান চালিয়ে মূলহোতা ইউসুফসহ ৭ জনকে আটক করেছে।
জেলা পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ ৭ জন আটকের সত্যতা স্বীকার করে জানান, মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে, তবে আইনীপ্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে।
২৫০ শয্যা হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার রত্বদ্বীপ বিশ্বাস বলেন, রাতে দুই জন মহিলা সেক্সুয়্যাল সমস্যা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। বর্তমানে তারা চিকিৎসাদীন রয়েছে।
দোষিদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলছেন ভোক্তভোগি ও তার পরিবার।