৮, জুলাই, ২০২০, বুধবার | | ১৭ জ্বিলকদ ১৪৪১

কলাপাড়ায় ভারী বৃষ্টিতে বিশাল ক্ষতির মুখে ৩০টি ইটভাটার মালিক

আপডেট: জানুয়ারি ৪, ২০২০

কলাপাড়ায় ভারী বৃষ্টিতে বিশাল ক্ষতির মুখে ৩০টি ইটভাটার মালিক

রাসেল কবির মুরাদ , কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি ঃ কলাপাড়ায় শীতকালীন ভাড়িবর্ষনে ৩০টির অধিক ইটভাটার মালিকদের দেড় কোটি টাকা মূল্যের কাঁচা ইট সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে গেছে। শুক্রবার থেকে শনিবার দুপুর পর্যন্ত ভারী বৃষ্টিপাতের কারনে পানি জমে ইট গুলো নষ্ট হয় বলে ইটভাটার শ্রমিক ও মালিকরা নিশ্চিত করেছেন।

সরেজমিন টিয়াখালী ইউনিয়নের বাদুরতলী গ্রামের একাধিক ইটভাটায় গিয়ে দেখাগেছে, আন্ধামানিক নদের তীরের সাগর ব্রিকস এর মাঠে তৈরী করা কাঁচা ইট গুলো বৃষ্টির কারনে কাঁদা মাটিতে পরিনত হয়েছে। সেখানে উপস্থিত লেবার সরদার মো. শাহিন জানায়, ইট তৈরীর মৌসুম শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দুই দফা বৃষ্টিপাত হয়। এতে কমপক্ষে সাগর ব্রিকসের সাত লাখ কাঁচা ইট সম্পূর্ণ নষ্ট হয়েগেছে। নষ্ট হওয়া ইট পুনরায় তৈরী করত সময় এবং খরচ দুটিই বেড়েগেছে।

সাগর ব্রিকস এর মালিক মো. শওকত হোসেন তপন বিশ^াস জানায়, পৌষের মাঝামাঝি সময়ের অকাল বৃষ্টিতে কলাপাড়ার ৩০টির অধিক ইটভাটার মালিকদের কয়েক কোটি কাঁচা ইট নষ্ট হয়েগেছে। ইট তৈরীর প্রথম মৌসুমে প্রতিটি ইটভাটায় শত শত শ্রমিক দিন-রাত একটান শ্রমদিয়ে ইট প্রস্তুত করে। প্রস্তুত করা ইট রোদে শুকিয়ে চুল্লিতে দেয়ার আগ মূহুর্তে ভারী বর্ষনে পুরোপুরি নষ্ট হওয়ায় কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়েছে ইটভাটার মালিকরা। ইট নষ্ট হওয়ায় ইটভাটার মালিকদের কমপক্ষে দেড় কোটি টাকার ইট সম্পূর্ণ নষ্ট হয়ে গেছে। ইটভাটার মালিকদের বর্তমান অবস্থা এমন হয়েছে যে, আর্থিক লোকসান কাটিয়ে ওঠার সামর্থও নাই, সামাজি অবস্থানের কারনে আর্থিক সহায়তা পাওয়ারও কোন উপায় নেই। শুধু লোকসানের ভাবনায় তিলে তিলে নিজেদের বিপর্যস্ত করাছাড়া করার কিছুই থাকছেনা ইটভারা মালিকদের।