২৫, অক্টোবর, ২০২০, রোববার | | ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

হাতীবান্ধায় সরকারী রাস্তা দখল করে বসতবাড়ী নির্মাণ

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০

হাতীবান্ধায় সরকারী রাস্তা দখল করে বসতবাড়ী নির্মাণ


হাসানুজ্জামান হাসান,লালমনিরহাটঃ

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা  উপজেলায় রেকর্ড ভুক্ত সরকারী প্রায় ৬০০ মিটার রাস্তার উপরে কাচা পাকা বাড়ী তৈরি করে বসবাস করছে নদীভাঙ্গা ৩০ পরিবার। তাদের কেউ ভূমিহীন নয়। ফলে চলাচলের জন্য সৃষ্টি হয়েছে জনদুর্ভোগ। কয়েক বছর যাবৎ জনসাধারণের চলাচলের সরকারী রাস্তায় বাড়ি তৈরী করায় ওই এলাকার জনসাধারণ ফুঁসে উঠেছে।

এমন ঘটনা ঘটেছে উপজেলার ডাউয়াবাড়ী ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের খোর্দ্দ বিছনদই এলাকায়।

এলাকাবাসীর অভিযোগে ও সরেজমিনে দেখা গেছে,  জনসাধারণের চলাচলের সরকারী রাস্তা বন্ধ করে  বাড়ি তৈরী করেছে নদীভাঙ্গা ৩০ পরিবার । তাদের কেউ ভূমিহীন নয়। এতে জনগনের চলাচলের রাস্তা ব্যক্তি মালিকানা জায়গা দিয়ে তৈরী করা হয়। চলতি অর্থবছরে রাস্তাটি হিরিং বন্ড বরাদ্দ আসায় ইতোমধ্যে  সাবেক প্রতিমন্ত্রী মোতাহার হোসেন এমপি হিরিং বন্ডের ফলক উন্মোচন করেছেন।

ওই গ্রামের বীরমুক্তিযোদ্ধা ফনিউল্ল্যাহ বলেন,  সরকারী রাস্তায় বসত বাড়ী করায়, চলাচলের জন্য এলাকাবাসী সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম মর্তুজা হানিফকে অনুরোধ  করে তার ব্যাক্তিগত জমির উপর দিয়ে যাতায়তের জন্য রাস্তা নেয়া হয়। সেই রাস্তা দিয়ে চলাচল করত ওই এলাকার ৪ মৌজার হাজার হাজার মানুষ। সম্প্রতি ওই রাস্তাটি এইচ বি বি হেরিং বন্ড বাজেট হওয়ায় চেয়ারম্যান তার জমি দিয়ে রাস্তা করতে দিবে না মর্মে এলাকাবাসীর অনুরোধে বেড়া দিয়েছিল। বাজেটকৃত রাস্তাটিতে বর্তমান কয়েকটি বাড়ী রয়েছে।  এ ঘটনায় হাতীবান্ধা ও কালীগঞ্জ দুই উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মহোদয় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বর্তমান চলাচলের সুবিধার জন্য বেড়া তুলে ফেলার নির্দেশ দেন এবং ম্যাপ অনুযায়ী রাস্তা তৈরীর প্রতিশ্রুতি দেন।

উক্ত বিষয়টি সুষ্ঠ সমাধানের লক্ষে বুধবার ১৯ ফেব্রুয়ারী দুই উপজেলার সার্ভেয়ার,জেলা পরিষদের সার্ভেয়ার ও বিভিন্ন এলাকার আমিনসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সমন্বয়ে রাস্তাটি মাপযোগ করে পাওয়া যায় সেই ৩০  পরিবারের বসতবাড়ি সরকারী রাস্তায়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সরকারী রাস্তা দখলমুক্ত ও সৃষ্ট সমস্যা সমাধানের অপেক্ষায় এলাকাবাসী।

এ বিষয়ে কালীগঞ্জ ও হাতীবান্ধা দুই উপজেলার সার্ভেয়ার জাহাঙ্গীর আলম জানান, মাপ অনুযায়ী ওইসব বাড়ী সরকারী রাস্তায় পড়েছে।

হাতীবান্ধা ও কালীগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী অফিসার বলেন ,আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। ম্যাপ অনুযায়ী রাস্তা তৈরী হবে। অবৈধভাবে কেউ রাস্তায় বাড়ী রাখতে পারবে না।