২৯, অক্টোবর, ২০২০, বৃহস্পতিবার | | ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

জাবিতে মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে অতিথি পাখি

আপডেট: ডিসেম্বর ১২, ২০১৮

জাবিতে মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে অতিথি  পাখি

মো. ফারুক হোসেন, জাবি প্রতিনিধি:নভেম্বর-ডিসেম্বর বাংলাদেশে শুধু শীত নয় আসে আরও একটা জিনিস যা কারো অজানা নয়: ‘অতিথি পাখি’। আমরা বাংলাদেশীরা এই শব্দটির সাথে ভালোভাবে পরিচিত। কারণ প্রতিবছর শীতকাল আসতেই দেশের বিভিন্ন প্রান্তের জলাশয়, হাওড়-বাওড়, খাল-বিল, লেক ইত্যাদি ভরে যায় নাম না জানা অতিথি পাখিতে।

বাংলাদেশীরা অতিথি পাখি শব্দটির সাথে পরিচিত তবে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) সকলে অতিথি পাখিদের সাথেই পরিচিত। কারণ শীতকালে পাখির কিচিরমিচির শব্দে ঘুম ভাঙে জাবির শিক্ষার্থীদের তথা ক্যাম্পাসবাসীর। অতিথি পাখি আর জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে রয়েছে যেন এক নিবিড় সম্পর্ক। তাই প্রতিবছর শীতের শুরুতে দূর-দূরান্ত থেকে আসা অতিথি পাখিদের মধ্যদিয়েই যেন হাসে জাবির লাল শাপলায় পরিপূর্ণ লেকগুলো।

এ বছরও তার ব্যতিক্রম হয়নি, ডিসেম্বরের শুরুতেই বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি লেকে নিজেদের আশ্রয় করে নিয়েছে পাখিরা যার দরুণ বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি লেক ভরে গেছে এই অতিথি পাখিতে। অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখর এখন জাবি ক্যাম্পাস। ফলে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সৌন্দর্যে যোগ হয়েছে এক নতুন মাত্রা। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা দর্শনার্থীরা প্রতিদিনই বিশেষত ছুটির দিনে এই নৈসর্গিক সৌন্দর্য্ উপভোগ করতে জাবি ক্যাম্পাসে ভীর করে ।

অন্যান্য বছরের তুলনায় অতিথি পাখি এবার কিছুটা দেরিতে আসলেও তা নেতিবাচকভাবে দেখছেনা পাখি নিয়ে গবেষণা করে আসা জাবির ‘প্রাণিবিদ্যা বিভাগ’।

লেক পরিষ্কার, লেকের চারপাশে বেড়া দেয়া, গণ সচেতনতামূলক সাইনবোর্ড টাঙ্গানোসহ পাখি সুরক্ষায় প্রশাসন নানা পদক্ষেপ নিতে দেখা গেছে। তবে গাড়ির হর্ণ বাজানো ও বহিরাগতদের অতিরিক্ত চলাচলের কারণে পাখির সংখ্যা এবার তুলনামূলক কম বলে অভিযোগ শিক্ষার্থীদের।

উল্লেখ্য, প্রতিবছরের ধারাবাহিকতায় আগামী বছরের ১১ জানুয়ারী, ‘পাখ পাখালি দেশের রত্ন, আসুন সবাই করি যত্ন’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে জাবিতে অনুষ্ঠিত হবে পাখি মেলা।