২২, এপ্রিল, ২০২১, বৃহস্পতিবার | | ১০ রমজান ১৪৪২

কুড়িগ্রামের ডিসির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন

আপডেট: মার্চ ১৬, ২০২০

কুড়িগ্রামের ডিসির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন

আসাদ হোসেন রিফাত, লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ বাংলা ট্রিবিউনের কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি আরিফুলকে শুধু জামিনে মুক্তি দিলে হবে না। নিঃশর্ত মুক্তির সঙ্গে  কুড়িগ্রাম  জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভিনের নির্দেশে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাজিম উদ্দিন ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রিন্টু বিকাশ চাকমাসহ জড়িতদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন করেছে সাংবাদিকরা।
সোমবার ( ১৬ মার্চ) সকাল ১০ টায়  কালীগঞ্জ প্রেসক্লাবের আয়োজনে এ মানববন্ধনে লালমনিরহাট জেলা ও  উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিকসহ সর্বস্থরের মানুষ অংশগ্রহন করে।
মানববন্ধনে দৈনিক মানব কন্ঠ প্রতিনিধি আসাদুজ্জামান সাজুর সঞ্চালনায় ও কালীগঞ্জ প্রেসক্লাব আমিরুল ইসলাম হেলালের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন-রংপুর বিভাগের এনটিভির স্টাফ রিপোর্টার একেএম মঈনুল হক,মানবজমিনের প্রবীন সাংবাদিক শেখ আব্দুল আলীম, সাংবাদিক তিতাস আলম, এনটিভি ও কালের কন্ঠ লালমনিরহাট প্রতিনিধি হায়দার আলী বাবু,যমুনা টিভির লালমনিরহাট প্রতিনিধি আনিছুর রহমান লাডলা,ডিবিসি’র লালমনিরহাট প্রতিনিধি মাজেদ মাসুদ,আলোকিত বাংলাদেশের কালীগঞ্জ প্রতিনিধি ফারুক হোসেন, লাখো কন্ঠ লালমনিরহাট প্রতিনিধি সবুজ আলী আপন,বার্তা২৪ লালমনিরহাট প্রতিনিধি নিয়াজ আহমেদ সিপন,দৈনিক মুক্তির প্রকাশক ও সম্পাদক নুর আলমগীর অনু, সাংবাদিক আসাদ হোসেন রিফাত, সাংবাদিক মানজুরুল ইসলাম,লালমনিরহাট অনলাইন নিউজের প্রকাশক ও সম্পাদক রাহেবুল ইসলাম টিটুল। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার প্রতিনিধিরা ।
মানববন্ধনে সাংবাদিকরা বলেন, টাস্কফোর্স অভিযানের নামে মধ্যরাতে ঘরের দরজা ভেঙে মারধর করে  তুলে নিয়ে শারীরিক নির্যাতন এবং ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এক বছরের জেল দিয়ে সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় দ্রুত সময়ের মধ্যে জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভিনকে প্রত্যাহার ও তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করার সিদ্ধান্তে সরকারের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।  
ডিসি সুলতানা পারভীন নিজের অপকর্ম ও দুর্নীতি আড়াল করতে গিয়ে যেভাবে আইনের অপব্যবহার করেছেন, তা সরকার ও প্রশাসনের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করেছে। ডিসিকে শুধু প্রত্যাহার নয় ভবিষ্যৎতে যেন আর কেউ আইন প্রয়োগের নামে মানবাধিকার লঙ্ঘন করতে না পারে তার দৃষ্টান্ত দাঁড় করতে হবে বলে ও জানান বক্তারা।সাংবাদিক নির্যাতনের  ঘটনা সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতা হরণের পাশাপাশি স্বৈরাচারী প্রশাসনের বহিঃপ্রকাশ।  সংবাদ কারো বিরুদ্ধে গেলেই সাংবাদিকদের হামলা ও মামলার শিকার হচ্ছে এটা কোনভাবেই কাম্য নয়।