২১, এপ্রিল, ২০২১, বুধবার | | ৯ রমজান ১৪৪২

সামাজিক দূরত্ব কার্যকর হচ্ছে না লালমনিরহাটের বিভিন্ন হাট বাজারে

আপডেট: এপ্রিল ৩, ২০২০

সামাজিক দূরত্ব কার্যকর হচ্ছে না লালমনিরহাটের বিভিন্ন হাট বাজারে

আসাদ হোসেন রিফাত,লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ

করোনাভাইরাস থেকে কমিউনিটিকে রক্ষার একমাত্র প্রাথমিক কৌশল সামাজিক দূরত্ব সৃষ্টি করা। কিন্তু শহর এলাকায় জনশূন্য পরিবেশ সৃষ্টি হলেও লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার গ্রামের হাট বাজার গুলোতে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলছেন না ক্রেতা বিক্রেতা অনেকেই। 
অথচ করোনাভাইরাস প্রতিরোধে একজন মানুষের থেকে আরেকজন মানুষের দূরত্ব তিন ফুট থাকার কথা। এমনকি দোকানে কেনাকাটা করতে গেলেও তিন ফুট দূরত্বে লাইন করে দাঁড়িয়ে কেনাকাটা করতে সরকারি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। জরুরী প্রয়োজনিয় দোকান ছাড়া অন্যান্য দোকান বন্ধ রাখার নির্দেশ থাকলেও তা অমান্য করে ব্যবসায়ীরা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান অর্ধেক খোলা রেখে দোকানের সামনে বসে আড্ডা দিচ্ছেন এবং চোরাগোপ্তা বেচাকেনাও করছেন।সরজমিনে গতকাল বৃহস্পতিবার লালমনিরহাটের পাঁচ উপজেলার সাধুরবাজার, সানিয়াজান বাজার, দিঘীরহাট, দইখাওয়া, বড়খাতা বাজার, ভোটমারী বাজার,ভুল্ল্যারহাট সহ আরো অনেক বাজারের এমন দৃশ্য দেখা যায়। সেখানকার তরিতরকারি ও মাছ-মাংসের দোকানে মানুষের অতিরিক্ত ভিড় ও গায়ের সাথে গা লাগিয়ে ঠাসাঠাসি করে বেশিরভাগ মানুষকে মাস্ক ছাড়াই বাজার করতে দেখা গেছে। অনেকে আবার করোনাভাইরাসের সচেতনতা সম্পর্কে জানলেও কোন সতর্কতা অবলম্বন না করেই মাস্ক এবং হ্যান্ড গ্লোভস ছাড়াই চলাচল করছেন। চায়ের দোকানে বসে খাওয়ার ব্যাপারে প্রশাসন নিষেধাজ্ঞা জারি করলেও গ্রামের এসব হাটবাজারে তা কার্যকর হচ্ছে না। অপরদিকে সড়কে যাত্রীবাহী অটো বাইক, অটো রিকশা,জেএস যাতায়াত করছে আর এসব যানবাহনে গায়ের সাথে গা লাগিয়ে ভিড়ে ঠাসাঠাসি করে যাতায়াত করছেন মানুষ। কিন্তু উল্লেখিত সড়কগুলোতে অবাধে চলাচলকারী গণপরিবহনের নিয়ম একেবারেই মানা হচ্ছে না। এতে এই জেলায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার সমূহ সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।গ্রামগঞ্জের হাটবাজার ও মোড়গুলোতে একসাথে বসে আড্ডা দেয়া ও চা খাওয়ার প্রবণতা সর্বাধিক। ফলে সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষিত হওয়ায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েই যাচ্ছে। এক্ষেত্রে প্রশাসনের নজরদারি একান্ত অপরিহার্য বলে মনে করেন সচেতন মহল।