৪, মার্চ, ২০২১, বৃহস্পতিবার | | ২০ রজব ১৪৪২

এবার সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে পরীক্ষার দাবিতে এসএসসি-২০২২ সালের পরীক্ষার্থীরা

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২১

এবার সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে পরীক্ষার দাবিতে এসএসসি-২০২২ সালের পরীক্ষার্থীরা

সংক্ষিপ্ত সিলেবাসের দাবিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীরা। 

বুধবার (১০ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সামনে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে অংশ নেয় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীরা। মানববন্ধন চলাকালে শিক্ষার্থীরা বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে ২০২০ সালে নবম শ্রেণিতে কোনো পাঠদান করা হয়নি। এ কারণে আমরা শিক্ষার্থীরা কোনও ধরনের শিক্ষালাভ করতে পারিনি। দুই বছর সময়ের মধ্যে আমাদের এক বছরের বেশি সময় পার হয়ে গেলেও আমরা কিছুই পড়তে পারিনি। যেহেতু ২০২১ সালে এসএসসি পরীক্ষা শর্ট সিলেবাসে অনুষ্ঠিত হবে। সে জন্য আমাদের দাবি আমাদেরকেও যেন ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষা শট সিলেবাসের মাধ্যমে নেওয়া হয়

এ সময় অন্নদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী শাহিন ইসলাম রায়হান বলেন, ২০২২ সালে আমরা এসএসসি পরীক্ষায় শর্ট সিলেবাস চাই। আমাদের গ্রুপের বিষয়গুলো ছাড়া অন্যান্য বিষয়গুলো আংশিক করে দিতে হবে। আমাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দ্রুত খুলে দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি। একই দাবিতে আইডিয়াল রেসিডেনসিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী মো. জাহিদ হাসান বলেন, ২০২২ সালে এসএসসি পরীক্ষায় শর্ট সিলেবাসের দাবিতে আমরা আজ বুধবার মানববন্ধন করছি। আমাদের দাবি ২০২১ সালের মতো ২০২২ সালেও শর্ট সিলেবাসের মাধ্যমে পরীক্ষা নিতে হবে। কারণ ২০২০ সালে করোনাভাইরাসের কারণে আমরা আহামরি কোনও পড়ালেখা করতে পারিনি। 

অন্নদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের আরেক শিক্ষার্থী আশিকুর রহমান তানভীর বলেন, ২০২০সালে আমরা নবম শ্রেণিতে কোনও ক্লাস করতে পারিনি। নবম শ্রেণিতে থাকাকালীন অবস্থায় সিলেবাসের সিংহভাগ পড়ানো হয়ে থাকে। কিস্তু করোনাভাইরাসের কারণে আমাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় কোনও পড়ালেখা করতে পারিনি। আমরা চাই ২০২১ সালে যেভাবে শর্ট সিলেবাসের মাধ্যমে এসএসসি পরীক্ষা নেওয়া হবে। ঠিক সেভাবেই ২০২২ সালেও শর্ট সিলেবাসের মাধ্যমে যেন এসএসসি পরীক্ষা নেওয়া হয়।পরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সামনে থেকে দাবিসংবলিত একটি মিছিল বের করে শিক্ষার্থীরা। পরে মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবারও প্রেসক্লাবের সামনে এসে শেষ হয়।