২২, এপ্রিল, ২০২১, বৃহস্পতিবার | | ১০ রমজান ১৪৪২

পাঁচবিবির সকল ভোটারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি সচেতন হয়ে ভোট দিন

আপডেট: ডিসেম্বর ২২, ২০১৮

পাঁচবিবির সকল ভোটারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি সচেতন হয়ে ভোট দিন

মোঃ আহসান হাবিব (বাপ্পি)
পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি :পাঁচবিবির অতীত ইতিহাস, সাহিত্য, সংস্কৃতি রাজনীতি ছিল দেখার মত। মাওলানা আব্দুল হামিদ খাঁন ভাষানী যখন পাঁচবিবিতে ছিল সে সময় এখানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জিয়াউর রহমান, কবি সুফিয়া কামাল, কাজী মোতাতার হোসেন চৌধুরী মত জ্ঞানী ব্যাক্তিবর্গ পাঁচবিবিতে এসেছিল ভাসানীর কাছে রাজনীতি শিখতে।সে সময় মহিপুর হাজী মহসীন সরকারি কলেজ, গুলবাহার আহম্মেদ জুটমিল, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্স, আবু নাছের খান ভাসানী উচ্চ বিদ্যালয়ের মত বড় বড় প্রতিষ্ঠান হয়ে ছিল। পাঁচবিবি নামটি তখন প্রসিদ্ধ লাভ করেছিল।বড় বড় সম্মেলন গুলো তখন পাঁচবিবিতে হয়েছিল। দিন দিন পাঁচবিবির নাম কমে যাচ্ছে। হাজার বছরের ইতিহাস মুছে যাচ্ছে সকলের অগচরে। প্রসিদ্ধ লাভ করছে ক্ষেতলাল,আক্কেলপুর,কালাই।একসময় হিলির বাসস্ট্যান্ডটি ছিল পাঁচবিবিতে। অফিস আদালত,জেলখানা,স্টেশনের ওভারব্রীজ, সুগারমিল সবকিছু ছিল পাঁচবিবিতে। বড় দুঃখের বিষয় আমরা জয়পুরহাট সদরের যে সংসদ সদস্য নির্বাচন করি তারা পাঁচবিবির উন্নয়নে তেমন কোন বড় কাজ করে নি।সদরে বড় বড় প্রতিষ্ঠান করেছে। কারন নিজ এলাকার প্রতি টান। গত পাঁচ বছরে কাজের কথা বললেআপনাকে নির্বাচিত করে পাঁচবিবির কি লাভ হচ্ছে। আমরা কি পারিনা এবারে ১ আসনের সকল প্রার্থীকে এক মঞ্চে নিয়ে আমাদের দাবিগুলো নির্বাচনের লিখিত ইশতেহার হিসাবে নিতে। ২ আসনে প্রার্থী ঠিক দিচ্ছে,কাজও করেছে বাপের বেটার মত।কষ্ট লাগে যখন শুনি ক্ষেতলাল,আক্কেলপুর,কালাই শতভাগ বিদ্যুৎ সংযোগ হওয়ার কথায়। আমাদের এমপি কোন মুখে সে অনুষ্ঠানে গিয়ে কথা বলে। নিজ নিজ এলাকা বিদ্যুৎ শতভাগ না করে। তবে কি আমরা আমাদের পাঁচবিবির দিন দিন এমন পরাজয় চেয়ে চেয়ে দেখবো। কেউ কি কোন প্রতিবাদ করবে না। দল আমার কাছে কোন আলোচ্য বিষয় না। পাঁচবিবির উন্নয়ন মূল কথা।পাঁচবিবির অতীত গৌরভ ফিরে আনতে আমরা কথা বলতে চাই। পাঁচবিবির দুঃখ নামে পরিচিত পাঁচবিবি টেক্সটাইল মিল। আজও আমরা তরুন স্বপ্ন দেখি চালু হবার। বেকার সমস্যা যে কত বড় তা কি এমপি মহাদয় কখনো ভেবেছেন।দিন দিন এক আসন পিছিয়ে যাচ্ছে বিশেষ করে পাঁচবিবি। হাজার বছরের ইতিহাস ধ্বংস হচ্ছে পাথরঘাটায় চেয়ে চেয়ে দেখতে এমপিরা। কোন দলের এমপি লকমা রাজবাড়ী ও পাথরঘাটার উন্নয়নে কোন কাজ করে নি।পাথরঘাটার মাজারের যে অল্প সংস্কার হয়েছে তা লোক দেখানো।এখনো জয়পুরহাট এর পাঁচটি উপজেলার মধ্যে সেরা উপজেলা পাঁচবিবি। কিন্তু এ সুনামটি আমরা না জেগে উঠলে তা হারাতে হবে অতি শিঘ্রই।কারন জনপ্রতিনিধি সৃজনশীল না তারা কখনো শিক্ষিত তরুন সমাজের প্রতিনিধিদের সাথে বসে আলোচনা করে না,যেমনটি ২ আসনের প্রার্থী করছে।জবাবদিহিতা না থাকলে কাজ হবে কিভাবে। লক্ষ্য করেছেন কেউ পাঁচবিবির গরুহাটি দিন দিন ছোট হচ্ছে,হারাচ্ছে তার ঐতিহ্য।একজন ব্যাক্তি তার সাধ্য মত পৌরসভার উন্নয়ন করে যাচ্ছে। কিন্তু বড় বড় উন্নয়ন করতে হবে এমপিকেই।আসুন পাঁচবিবি দল মত নির্বিশেষে আমরা পাঁচবিবির উন্নয়নে জাগ্রত হই।সাতটি বিষয় যা করা অতি দূত চালু করা দরকারআগামী ৫ বছরে ৭ টি কাজ হলে আমরা এগিয়ে যেতে পারবো।১। পাঁচবিবি স্টেশনে সকল ট্রেনের স্টপেজ চালু২। পাঁচবিবি টেক্সটাইল মিল চালু (যা হাজারবেকারের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবে।)৩। পাঁচবিবিতে একটি সরকারি পলিটেকনিকইনস্টিটিউট স্থাপন।৪। একটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়৫। ঐতিহাসিক পাথরঘাটাকে পর্যটক নগরীহিসাবে গড়ে তোলা।৬। লকমা রাজবাড়ীকে উন্নত দর্শনীয় স্থানহিসাবে গড়ে তোলা।৭। গুলবাহার আহম্মেদ জুটমিল চালু করাএ সাতটি কাজ পরিপূর্ণ করতে পারলে আমাদের পাঁচবিবি আগামীতে সেরা হিসাবে থাকবে সকল উপজেলা থেকে। আপনারা এগিয়ে আসুন আমি জীবন দিতেও প্রস্তুত এগুলো বাস্তবায়ন করতে। এখনি সময় জেগে ওঠার। যে আমাদের এ স্বপ্নগুলো বাস্তবায়ন করতে পারবে আমরা তাকেই ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবো ইনশাআল্লাহ। আর সব প্রার্থীকে একটা কথা বলতে চাই পাঁচবিবির সব লোক যাকে ভোট দিবে সেই এমপি হবে ইনশাআল্লাহ। আসুন পাঁচবিবিবাসী আমরা আমাদের এ দাবীগুলো বাস্তবায়নের নির্বাচনী ইশতেহার যুক্ত করি, উন্নত পাঁচবিবি গড়ি। সকলের মতামত প্রার্থনা করছি।লেখক-ফিরোজ হোসেন ফাইনঢাকা কলেজ।সাধারণ সম্পাদকশিক্ষার্থী সমিতি, পাঁচবিবি।