২২, এপ্রিল, ২০২১, বৃহস্পতিবার | | ১০ রমজান ১৪৪২

প্রায় আধাঘন্টা লড়াই করে বাঘের মুখ থেকে বেঁচে ফিরলেন জেলে

আপডেট: জানুয়ারি ৩, ২০১৯

প্রায় আধাঘন্টা লড়াই করে বাঘের মুখ থেকে বেঁচে ফিরলেন জেলে

রানা ফকির, বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধি: প্রায় আধাঘন্টা লড়াই করে বাঘের মুখ থেকে বেঁচে ফিরলেন জেলে মাসুম হাওলাদার (৩০)। বুধবার বিকেল ৩টার দিকে পূর্ব সুন্দরবনের ধানসাগর স্টেশনের তাম্বলবুনিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহতাবস্থায় বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে তাকে শরণখোলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আহত জেলে উপজেলার উত্তর রাজাপুর গ্রামের আ. জলিল হাওলাদারের ছেলে।

সঙ্গীয় জেলেরা বাগেরহাট টুয়েন্টি ফোরকে জানান, মামুস হাওলাদার ও তার ভাই জাহিদুল হাওলাদার ধানসাগর স্টেশন থেকে বড়সী দিয়ে মাছ ধরার পাস (বনবিভাগের অনুমোতি) নিয়ে বনের তাম্বলবুনিয়া এলাকায় গিয়েছিলেন। বিকেল ৩টার দিকে বড়সীর আধারী সংগ্রহের জন্য জাহিদুল খালে জাল ফেলে মাছ ধরছিলেন। আর খালের চরে দাঁড়িয়ে ছিলেন মাসুম। এসময় বনের ভেতর থেকে বাঘ হঠাৎ মাসুমের ডান পায়ে আক্রমন করলে অন্য পা দিয়ে লাথি মেরে সরিয়ে দেয়। আবার বাঘ তার বাহাত ধরে কেয়া বনের মধ্যে টেনে নিয়ে যেতে থাকলে বাঘের সঙ্গে তার ধস্তাধস্তি হয়। একপর্যায় তার ভাই জাহিদুলের চিৎকারে কাছাকাছি মাছধরারত জেলেরা ছুঁটে এলে বাঘ মাসুমকে ছেড়ে বনে পালিয়ে যায়। এতে তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে ভাঘের নখ ও দাঁতের আঘাতে মারত্মক জখম হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী জেলে হাবিবুর রহমান খলিফা জানান, তারা কাছাকাছি মাছ ধরছিলেন। এসময় চিৎকার শুনে ঘটনাস্থলে আসতেই বাঘ মাসুমকে ছেড়ে দিয়ে বনে চলে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়।

শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. রিপন নাথ জানান, মাসুমের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ক্ষত হয়েছে। তবে, তার অবস্থা আশঙ্কামুক্ত।