২১, জানুয়ারী, ২০২০, মঙ্গলবার | | ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

মন্ত্রীত্ব শুন্য কিশোরগঞ্জ

আপডেট: জানুয়ারি ৭, ২০১৯

মন্ত্রীত্ব শুন্য কিশোরগঞ্জ

আশরাফুল ইসলাম তুষার(কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি) :স্বাধীনতার দ্বীর্ঘ ৪৭ বছর পর এবার ই প্রথম মন্ত্রীত্ব শুন্য হল কিশোরগঞ্জ।
বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম ছিলেন কিশোরগঞ্জ এর। পরবর্তীতে সংসদীয় শাসনব্যবস্থার
বদলে রাষ্ট্রপতিশাসিত ব্যবস্থায় ফেরার পর তিনি হন শিল্পমন্ত্রী। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ফেরার পর কিশোরগঞ্জ আবার পরিচিত হয়ে ওঠে ‘মন্ত্রীর’ জেলা হিসেবে। স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রীর দায়িত্ব পান সে সময়
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান। সৈয়দ নজরুলের পুত্র সদ্য প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম হন বেসামরিক বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী। বর্তমান রাষ্ট্রপতি
আবদুল হামিদ হন ডেপুটি স্পিকার।
সৈয়দ নজরুল ইসলাম এর পর মরহুম জিল্লুর রহমান কিশোরগঞ্জ থেকে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন।
এবং বর্তমান রাষ্ট্রপতিও কিশোরগঞ্জ এর ।
২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ আবার সরকারে আসার পর
পূর্ণাঙ্গ মন্ত্রী হন সৈয়দ আশরাফ। পান স্থানীয় সরকারের
দায়িত্ব। ডেপুটি স্পিকার থেকে পদোন্নতি পেয়ে আবদুল
হামিদ হন স্পিকার। আর জিল্লুর রহমান হন রাষ্ট্রপতি।
এই সরকারের আমলে ২০১৩ সালে জিল্লুর রহমানের মৃত্যুর পর আবদুল হামিদ হন রাষ্ট্রপতি। আর ২০১৪ সালের ভোট শেষে সৈয়দ আশরাফ আবার হন এলজিআরডিমন্ত্রী।জাতীয় পার্টির একজন প্রতিমন্ত্রী পায় জেলাটি। কিশোরগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির মজিবুল হক চুন্নু হন প্রতিমন্ত্রী।
কিশোরগঞ্জ এর ইতিহাসে একই সাথে মহামান্য রাষ্ট্রপতি,সাবেক এলজি আরডি মন্ত্রী,জনপ্রশাসন মন্ত্রী,পুলিশের সাবেক আইজিপি,প্রধানবিচারপতি,সেনাপ্রধান, শ্রম ও কর্ম সংস্থান প্রতিমন্ত্রী ও ছিল কিশোরগঞ্জে।
কিশোরগঞ্জ বাসীর গর্ব,কিশোরগঞ্জ বাসীর অভিভাবক আওয়ামীলীগ এর সাবেক সাধারন সম্পাদক, সাবেক এলজি আরডি মন্ত্রী,জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ৩ রা জানুয়ারি মৃত্যু বরন করেন।৫ ই জানুয়ারি সন্ধায় তার মরদেহ দেশে আনা হয়।
গতকাল ৬ ই জানুয়ারি ঢাকায়, কিশোরগঞ্জে এবং ময়মনসিংহে তার জানাযা শেষে বনানি কবরস্থানে দাফন করা হয়।যখন কিশোরগঞ্জ বাসী দু:খ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে আশায় বুক পেতেছিল কিশোরগঞ্জ এর পাচটি আসন থেকে হয়তো এবার মন্ত্রী সভায় কেও নিয়োগ পাবেন,কিন্তু সেই আশার আলো নিভে গেল গতকাল মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী দের নাম ঘোষনা করা হলে।কেননা,এবার ই প্রথম কিশোরগঞ্জ থেকে কাউকে মন্ত্রী করা হয় নি।
এজন্য,কিশোরগঞ্জ বাসীর ধন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম কে হারিয়ে সাথে সাথেই আরেকটি দু:সংবাদ পেল।এই খবর কিশোরগঞ্জের কেউ মেনে নিতে পারছে না।এ বিষয়ে প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করতে গিয়ে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ আফজল বলেন, আপাতত কিশোরগঞ্জে কোন মন্ত্রী নেই। আগে যারা ছিলেন তারাও বাদ পড়েছেন। তবে নেত্রীর দিকে তাকিয়ে আছি হয়তো নেত্রী কোন চমক দিতে পারেন।তিনি বলেন,কিশোরগঞ্জ জেলার উন্নয়ন তথা সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সাহেবের অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করতে কিশোরগঞ্জ থেকে একজন মন্ত্রী নিয়োগ পাবেন বলে আশা করে কিশোরগঞ্জ বাসী।