৩, জুন, ২০২০, বুধবার | | ১১ শাওয়াল ১৪৪১

ঝিনাইদহের কালিগঞ্জে যৌতুকের বলি হতে হলো শিউলি খাতুনকে

আপডেট: জানুয়ারি ৮, ২০১৯

ঝিনাইদহের কালিগঞ্জে যৌতুকের বলি হতে হলো শিউলি খাতুনকে



ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃবাবার বাড়ি থেকে জমি বিক্রি করে স্বামীকে টাকা এনে দিতে না পারায় শিউলিকে শারিরীক নির্যাতন করে হত্যা করলো ঝিনাইদহ জেলার কালিগঞ্জ থানার বড় ডাউটি গ্রামের আনিচুর নামের পাষন্ড স্বামী নাম ধারী এক নরপশু।
স্কুল ব্যাগ নিয়ে মৃত মায়ের পাশে শোকে নির্বাক নিহতের মেয়ে।একটি নিষ্পাপ হতভাগীর অসহায় আহাজারীর স্পষ্ট প্রকাশ তার এই চাহনিতে। বেচারাটি হয়ত এখনও বুঝেই ওঠতে পারেনি তার হতভাগী মা আর কোন দিনই তার ডাকে সারা দিবে না। মায়ের কোলে আশ্রয় নিতে পারবে না। মায়ের কাছে কোন আব্দার করতে পারবে না। একদিন হয়ত মায়ের আকৃতিও মনে করতে পারবে না।  মায়ের অসাড় দেহের পাশে বসে পাথর হয়ে গেছে অবুজ বালিকাটি। সে হয়ত বুঝতেই পারছে না তাকে কতটা অনিশ্চিয়তায় রেখে তার মাকে এভাবে চলে যেতে হলো।

কাল থেকে যে বাস্তবতার সম্মূখীন তার হতে হবে তা কি সে এই মুহূর্তে এতটুকু উপলব্দি করতে পারছে? মেয়েটি চোখে কোন পানি নাই, নেই কোন কান্নার শব্দ, শুধু চাহনিতে যে আহাজারি এই নিষ্ঠুর নির্বোদ পৃথিবীর পুরুষ শাসিত সমাজকে বুঝাতে চেয়েছে তাকি অক্ষম যৌতুকলোভী সমাজ অনুধাবন করতে পারছে? সামান্য যৌতুকের জন্য একজন মেয়েকে হত্যা করে নিজের মেয়েকে কতটা অনিশ্চিত জিবনের দিকে ঠেলে দিলো পাষন্ড এই পিতা কি একবারের জন্যও ভেবে দেখেছে?
আমাদেরদেশে যৌতুক বা নারি নির্যাতনের মামলা হলেই অনেকে ধরে নেয় এ মামলা মিথ্যা যা কোন স্বার্থ হাসিল বা পুরুষকে সায়েস্তা করার জন্য যৌতুক বা নারি নির্যাতনের মামলা করা হয়েছে। জব্দ করার হাতিয়ার হিসাবে সাধারনত স্পর্শকাতর ধারাগুলো মক্ষম দাওয়াই রুপে কাজে লাগায় নারীরা।
মিথ্যা মামলার ভিড়ে প্রকৃত নির্যাতিতা সঠিক আইনি সহায়তা থেকে বঞ্চিতও হয় অনেকে।

ব্যক্তি, সমাজ, গোষ্ঠি, জাতি, সংস্থা, সরকার সবাই যৌতুক বিরোধী কাজে সচেতন ও তৎপর। তবুও এই ব্যধি থেকে কি আমরা মুক্তি পেয়েছি? সমাজের বিভিন্ন স্তরে বিভিন্ন কৌশলে যৌতুকের রাজত্ব চলেই যাচ্ছে। উপহার, উপঢৌকন, প্রথা, রীতি, চল ইত্যাদি নামেও যৌতুক চলেই আসছে বা এখনও চলছে। তারই নির্মমতার শিকার হলো আরও একজন হতভাগী মা। এর থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার কার্যকরী কোন উপায় কি নাই?i