২৫, নভেম্বর, ২০২০, বুধবার | | ৯ রবিউস সানি ১৪৪২

স্বপ্নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ছাত্রলীগের মিছিল ও সমাবেশ “

আপডেট: জানুয়ারি ১৭, ২০১৯

স্বপ্নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ছাত্রলীগের মিছিল ও সমাবেশ “

আব্দুল কাফী, ঢাবি প্রতিনিধি: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের অধিকার ও বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে স্বপ্নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গড়তে মিছিল ও সমাবেশ করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ। আজ দুপুর ২ টায় মধুর ক্যান্টিন থেকে মিছিল শুরু করে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে এসে সমাবেশ করে। সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রলীগের শীর্ষ ৪ নেতা, বিভিন্ন হলের নেতা কর্মীরা।  এছাড়াও ঢাকা মহানগর উত্তর  ছাত্রলীগের সভাপতি ইব্রাহীম হোসেন উপস্থিত ছিলেন। 
এ সময় সমাবেশে ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন বলেন, দীর্ঘ ২৮ বছর পর হাইকোর্টের নির্দেশে ডাকসু নির্বাচন আয়োজনের চেষ্টা চলছে। ছাত্রলীগসহ অন্যান্য ছাত্র সংগঠনও এ বিষয়ে আন্তরিক। প্রশাসনও আন্তরিক।বাংলাদেশ দিনদিন নেতৃত্ব শূন্য হয়ে যাচ্ছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ব তৈরি করা সম্ভব হবে।  ঢাবির হলে শিক্ষার্থীরা সিট পায় না, এসবের  সমাধান চান তিনি।
সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণ প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীরা। আপনারা এসেই দেখছেন হলে সিট সংকট। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা তাদের কথা বলার জন্য একটি প্লাটফরম খুঁজছে। দীর্ঘ ২৮ বছর আমরা যা পাইনি।  ছাত্রলীগ স্পষ্ট  ভাষায় বলতে চায়- দীর্ঘ ২৮ বছরের গড়িমসি, প্রশাসনের যে ছেলেখেলা সেখান থেকে আমরা মুক্তি চাই। অবিলম্বে ডাকসুর তফসিল ঘোষণা চাই।
সমাবেশে ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে একটি পূর্ণাঙ্গ আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় করার এবং মেয়েদের চলাফেরায় নিরাপত্তা নিশ্চিত করার আহ্বান জানান। এছাড়াও তিনি বলেন স্টিকার বিহীন গাড়ি ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে না দিতে।  আবাসন সংকট কাটাতে। তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ  করে বলেন “ক্যান্টিনের খাবারের মানের কোন উন্নয়ন হচ্ছে না, আমরা সার্টিফিকেটের তোয়াক্কা করি না,  সঠিকভাবে অনতিবিলম্বে ঢাকসু নির্বাচন না দিলে সাধারণ শিক্ষার্থীদের অধিকার হরণ করলে, রাজপথে ছাত্রলীগের সাথে আপনাদের দেখা হবে।”
ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক সাদ্দাম হোসেইন তার বক্তব্যে বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের গণতান্ত্রিক অধিকার ফিরিয়ে দিতে হবে। ডাকসুর জন্য ২৮ বছর অপেক্ষা করেছি আর ২৮ দিনো অপেক্ষা করতে চাইনা। অনতি বিলম্বে তফসিল ঘোষণা করতে হবে।
তিনি আরো বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের দায়িত্বের ব্যাপারে নির্লিপ্ত। সিট দখল কেন্দ্রিক রাজনীতি ছাত্রলীগ করতে চায়না। দেশ ডিজিটালের পথে এগিয়ে গেলেও ঢাবি এখনো এনালগ। অতিদ্রুত বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল কার্যক্রমকে অটোমেশন সিস্টেমের আওতায় আনতে হবে’সান্ধ্যকালীন কোর্সগুলোর বিষয়ে নতুন করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এ বিশ্ববিদ্যালয় টাকা বানানো কোন কারখানা নয়। 
উল্লেখ্য যে এর আগে ঢাবি ছাত্রলীগ “স্বপ্নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়” গড়তে ১৪টি  দাবি উপস্থাপন করেছে প্রশাসনের কাছে।