২২, জানুয়ারী, ২০২১, শুক্রবার | | ৮ জমাদিউস সানি ১৪৪২

কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ছাত্রীর স্কুলে যাওয়া বন্ধ

আপডেট: জানুয়ারি ১৯, ২০১৯

কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ছাত্রীর স্কুলে যাওয়া বন্ধ

কালিহাতী,(টাঙ্গাইল)প্রতিনিধি:কালিহাতী উপজেলার কাগুজি
পাড়া গ্রামের জনৈক ছাত্রী বল্লা করোনেশন
স্কুল অ্যান্ড কলেজে ৮ম শ্রেণিতে পড়ালেখা
করে। ওই ছাত্রীর উপর কু-নজর পড়ে একই
এলাকার প্রভাবশালী মরহুম আছানউল্লাহ
মাস্টারের ছেলে মো. হান্নান তালুকদারের।তালুকদারের কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তার ভয়ে স্কুলে যেতে পারছেনা একই এলাকার
এক অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী। এ ঘটনায়
বৃহস্পতিবার(১৭ জানুয়ারি) দুপুরে আয়োজিত
গ্রাম্য সালিশও অমান্য করেছে প্রভাবশালী
হান্নান তালুকদার।
হান্নান তালুকদার স্কুলে যাতায়াতের পথে
মাঝে মাঝেই ওই ছাত্রীকে নানাভাবে
উত্ত্যক্ত করছিল। গত ১ জানুয়ারি স্কুলে
যাওয়ার পথে হান্নান তালুকদার ওই ছাত্রীকে
কু-প্রস্তাব দেয়। এতে রাজি না হয়ে ছাত্রীটি
তার বিধবা মাকে ঘটনা জানায়। ছাত্রীটির
মা হান্নানের পরিবারকে ঘটনাটি জানালে
মো. হান্নান তালুকদার ক্ষুব্ধ হয়ে
ছাত্রীটিকে শায়েস্তা করার সুযোগ খুঁজতে
থাকে। ওইদিন রাতে জাতীয় নির্বাচনে
বিজয়ী হওয়ার স্থানীয় উৎসবে ছাত্রীটি অংশ
নিয়ে ফেরার সময় হান্নান তালুকদার(৩০) ও
তার ভাই হকিকুল ইসলাম তালুকদার(৩৫)
পথরোধ করে ছাত্রীটির উপর চড়াও হয়। এ সময়
তারা ছাত্রীটিকে পিটিয়ে আহত করে ও
দুজনে ধরে দূরে ছুঁড়ে ফেলে দেয়। এতে
ছাত্রীটির কোমর ভেঙে যায়। ফলে স্কুলে
যাওয়া বন্ধ হয়ে যায়।
এলাকাবাসী জানায়, মো.
হান্নান তালুকদার এলাকায় একজন অসামাজিক
লোক হিসেবে পরিচিত। এলাকার কূলবধূরা
তাকে খুব খারাপ মানুষ হিসেবে জানে।
এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে স্থানীয়
তালুকদার বাড়িতে আ. আওয়াল তালুকদারের
সভাপতিত্বে এক গ্রাম্য সালিশের আয়োজন
করা হয়। সালিশে উভয় পক্ষের লোকজন
উপস্থিত হলেও মো. হান্নান তালুকদার হাজির
হননি। উপস্থিত মাতব্বর মো. দুলাল হোসেন
তালুকদার, শাহআলম তালুকদার, হারুন অর রশিদ
তালুকদার, রফিকুল ইসলাম, মাসুদ ও শামসুল সহ
স্থানীয় মাতব্বরা কোন সিদ্ধান্তে
পৌঁছানোর আগেই হকিকুল ইসলাম তালুকদার
তার বাহামভুক্ত লোকজন নিয়ে সালিশ না
মানার ঘোষণা দেয়। এক পর্যায়ে তারা
উপস্থিত মাতব্বরদের অশালীন ভাষায়
গালিগালাজ করতে থাকে। পরে মাতব্বররা
ছাত্রীটির বিধবা মাকে এ বিষয়ে আইনগত
ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ দেন।
স্থানীয় মাতব্বর মো. দুলাল হোসেন তালুকদার
জানান, মো. হান্নান তালুকদার যে কাজটি
করেছে তা অবশ্যই অপরাধমূলক। তারা গ্রাম্য
সালিশও অমান্য করেছে। তিনি তাদের
দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।
এ বিষয়ে মো. হান্নান তালুকদার কোন কথা
বলতে রাজি হননি।
শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এ বিষয়ে পুলিশ
সুপারের কাছে প্রতিকার চেয়ে আবেদন করার
প্রক্রিয়া চলছে বলে ছাত্রীটির মা
জানিয়েছেন।