২২, এপ্রিল, ২০২১, বৃহস্পতিবার | | ১০ রমজান ১৪৪২

স্থানীয়দের হামলার প্রতিবাদে জাককানইবিতে মানববন্ধন

আপডেট: জানুয়ারি ২০, ২০১৯

স্থানীয়দের হামলার প্রতিবাদে জাককানইবিতে মানববন্ধন

মোঃ হুমায়ুন কবির সরকার (টুটুল) ,জাককানইবি প্রতিনিধি : জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইইই বিভাগের ২০১৬/১৭ সেশনের শিক্ষার্থী রাজিব হোসেনের উপর স্থানীয় সন্ত্রাসীদের হামলার প্রতিবাদে রোববার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে মানববন্ধন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

মানববন্ধনে ইইই বিভাগসহ অন্যান্য বিভাগের শিক্ষার্থী, বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর ড. উজ্জ্বল কুমার প্রধান এবং বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র উপদেষ্টা প্রফেসর ড. সাহাবউদ্দিন  বাদল উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় ইইই বিভাগের দ্বিতীয় ব্যাচের শিক্ষার্থী এজাজ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ফলে এই গ্রাম দিনে দিনে শহরে পরিণত হচ্ছে। যার ফলে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাই স্থানীয় সন্ত্রাসীদের হাতে প্রতিনিয়ত বিভিন্ন ভাবে হামলার শিকার হচ্ছে। তিনি রাজীবের উপর হামলায় জড়িতদের দ্রুত বিচারের আওতায় আনার দাবি জানান।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর ড.উজ্জ্বল কুমার প্রধান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় পুলিশ ফাঁড়িসহ ত্রিশাল পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গে আমরা যোগাযোগ করছি। দ্রুত সময়ের মধ্যে তদন্ত কমিঠি গঠন করে দুষ্কৃতিকারীদের চিহ্নিত করে আইনুনাগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এবং শিক্ষার্থীদের দাবি বাস্তবায়ন করা হবে।

মানববন্ধন শেষে শিক্ষার্থীদের একটি প্রতিনিধি দল উপাচার্য বরাবর ৬ দফার একটি স্মারকলিপি দেন।

দফাগুলা :

১. রাজিবের উপর অতর্কিত হামলার সুষ্ঠু বিচার।

২. শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা ।

৩. বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসন সংকট দূরীকরণ।

৪.মেসের নিরাপত্তা ও সকল চুরির ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত।

৫. স্থানীয় সন্ত্রাসীদের নির্যাতন রোধে সুষ্ঠু ব্যবস্থা গ্রহণ।

৬.প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণে প্রশাসনের অনীহা দূরীকরণ ও দ্রুত পদক্ষেপ নিশ্চিত করণ।

উল্লেখ্য , বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০১৬/১৭ সেশনের শিক্ষার্থী মো রাজীব হোসেন স্থানীয় কিছু সন্ত্রাসীদের হামলায় গুরুতর আহত হন।

বুধবার সন্ধায় ত্রিশাল চড়পাড়া আশির্বাদ ভিলা মেসের সামনে ঘটনাটি ঘটে। জানা যায়, সোমবার সন্ধায় রাজীব মেসে ফেরার সময় লাল মিয়ার ছেলে তাজামুল ওর চোখে লাইট ধরে, রাজীব প্রতিবাদ করলে তারা রাজীবের পথ আটকায়। পালিয়ে তার রুমে ঢুকতে চাইলে তাজামুলের নেতৃত্বে একদল যুবক রাজীবের হাত থেকে রুমের তালা কেড়ে নিয়ে মাথায় আঘাত করলে রাজীব জ্ঞান হারায়। পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন পুলিশের সহায়তায় রাজীবকে উদ্বার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ পাঠায়।