১১, আগস্ট, ২০২০, মঙ্গলবার | | ২১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

চরফ্যাশনে অগ্নিকান্ড

আপডেট: জানুয়ারি ২৮, ২০১৯

চরফ্যাশনে অগ্নিকান্ড

চরফ্যাশন: ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে চরফ্যাশনের অধিকাংশ গার্মেন্টস  জনতা রোডে। আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে চল্লিশ টির বেশি ঘর। সব হারিয়ে নিঃস্ব এখন গার্মেন্টস দোকানরা। পরনের কাপড়টুকুই তাদের সম্বল।
তিলে তিলে গড়ে তোলা তাদের এসব দোকান, আসবাবপত্র ও জমানো টাকা-পয়সা কোনো কিছুই আগুনের হাত থেকে বাঁচাতে পারেননি।
স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কারেন্ট মিটার থেকেই এই আগুন লাগে। ছয়টি বইয়ের লাইব্রেরি,দুই টি মদি দোকান,একটি ইষ্টডিও সহ ৩০টি গার্মেন্টস।
সাথী গার্মেন্টসের মালিক বলেন,  আমি দোকান বন্ধ করে বাসায় যাইতেছি হঠাৎ , আগুন আগুন চিৎকার শুইনা আমি আবার ফিরে এসে দেখি সব  আগুন জ্বলছে।
গার্মেন্টসেরর একজন মালিক দৈনিক সময়ের কন্ঠকে বলেন, মিটার থেকেই প্রথমে আগুন লাগছে মুহূর্তের মধ্যেই আগুন পুরো গোডাউনে ছড়িয়ে যায়। আমরা কিছুই বের করতে পারিনি। শুধু নিজে জীবনটা বাঁচাতে পেরেছি, ভাই।
সরেজমিনে ঘুরে ও দোকান পাটের একাধিকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে,কারেন্ট থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটে।
গার্মেন্টসের পাশে ছিলো রুপালি, সোনালী ব্যাংক আল্লাহর অশেষ রহমতে ব্যাংকে আগুন আসতে পারেনি ।
মালিকরা দৈনিক সময়ের কন্ঠকে বলেন, সারাজীবন কষ্ট করে কামাইলাম আর সব আগুনে পুরে ছাই হয়ে গেল। আমরা এখন কি করবো বুজতে পারি না। কিভাবে চলমু?
রবিবার (২৭ জানুয়ারি) দিবাগত রাত ১২টা ২০ মিনিটে জনতা রোডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ফায়ার সার্ভিসের ৩টি ইউনিট সকাল ৫ টা পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়।
এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার আজ সকালে এক কারেন্ট মিকার (মোঃশরীফ)  এক্সিডেন্ট গুরুতরে অবস্তায়। তাকে উপজেলা মেডিকেল থেকে নিয়ে যাওয়া হয় সদর বরিশালে।