২৯, অক্টোবর, ২০২০, বৃহস্পতিবার | | ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

রিয়ালকে উড়িয়ে শেষ আটে আয়াক্স

আপডেট: মার্চ ৬, ২০১৯

রিয়ালকে উড়িয়ে শেষ আটে আয়াক্স

কথায় আছে ‘আজকের রাজত্ব, কালকের ছাই।’ কত বড় বড় সাম্রাজ্য শেষ হয়ে গেল। আর এতো ক্লাব রিয়ালের চ্যাম্পিয়নস লিগের রাজত্ব। অবশেষে ১৩বারের চ্যাম্পিয়নরা সেই রাজত্ব শেষ ষোলোতেই থামল। তাও আবার আয়াক্সের কাছে। এ নিয়ে রিয়ালের চ্যাম্পিয়নস লিগে পুরো এক হাজার দিনের রাজত্ব শেষ হলো। রিয়ালকে ঘরের মাঠে ৪-১ ব্যবধানে হারের লজ্জা দিল তারা। দুই লেগ মিলিয়ে ৫-৩ ব্যবধানে জিতে উঠে গেল চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে। ফেব্রুয়ারির ২৮ তারিখ থেকে ৬ মার্চ। এক সপ্তাহ। এই এক সপ্তাহের মধ্যে তিনটি শিরোপার স্বপ্ন শেষ হয়ে গেল রিয়াল মাদ্রিদের। তিনটি স্বপ্নই ঘরের মাঠে নিজ দর্শকদের সামনে শেষ হতে দেখেছে লস ব্লাঙ্কোসরা। প্রথমে কোপা দের রে’র সেমি থেকে বার্সার কাছে হেরে বিদায়। পরের ম্যাচে লা লিগার টিমটিম করে জ্বলা শিরোপা স্বপ্ন বার্সার কাছে হেরে শেষ। এবার বার্নাব্যুতে আয়াক্সের বিপক্ষে চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলো থেকে।ম্যাচের প্রথমার্ধেই ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় আয়াক্স। ম্যাচের ৭ মিনিটের মাথায় প্রথম গোল করে আয়াক্স। এরপর ১৮ মিনিটের মাথায় গোল করেন নারেস। দ্বিতীয়ার্ধের ৬২ মিনিটে গোল করে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় নেদারল্যান্ডসের অন্যতম সেরা এই ক্লাব। স্বপ্ন উজ্জ্বল করে চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের। কিন্তু ম্যাচের ৭০ মিনিটে গোল করে আশা জাগায় অ্যাসেনসিও। কিন্তু ৭২ মিনিটে আবার গোল করে রিয়ালের জেগে ওঠা আশা শেষ করে দেয় সফরকারীরা।এ নিয়ে এগারো মৌসুম বাদে চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলো থেকে বিদায় নিলো তারা। যারা কিনা চ্যাম্পিয়নস লিগের অপতিরোধ্য দল। জিদানের অধীনে এই রিয়াল পরপর তিন মৌসুম চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপা জেতে। সর্বশেষ পাঁচ মৌসুমে চারবার। এর আগে ২০০৬ মৌসুমে সর্বশেষ ব্লাঙ্কোসরা শেষ আটে উঠতে পারেনি।রিয়ালের এই হারে আগামী মৌসুম পর্যন্ত সোলারির চাকরি থাকছে না এটা একপ্রকার নিশ্চিত। কোপা দেল রে’ থেকে বিদায়। লা লিগায় বার্সার থেকে ১২ পয়েন্ট পিছিয়ে। বেঁচে থাকা একমাত্র শিরোপার আশা চ্যাম্পিয়নস লিগও শেষ। রিয়াল কতৃপক্ষ এবার রোনালদোর জন্য একটু আক্ষেপ করবে? কিংবা রামোস। প্রথম লেগে চ্যাম্পিয়নস লিগের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত হয়ে গেছে ধরে ইচ্ছাকৃত হলুদ কার্ড দেখেন তিনি। নিষেধাজ্ঞায় দরুণ এ ম্যাচে তাই ছিলেন না তিনি। তার খেসারত রিয়ালকে সুদে-আসলে দিতে হলো। ম্যাচের অতিরিক্ত সময়ে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন ‌ন্যাচোও।