৬, জুলাই, ২০২০, সোমবার | | ১৫ জ্বিলকদ ১৪৪১

জামালপুরে এমপির ভাতিজা পরিচয়দানকারীর হাতে লাঞ্চনার শিকার উপজেলা শিক্ষা অফিসার

আপডেট: মার্চ ২০, ২০১৯

জামালপুরে এমপির ভাতিজা পরিচয়দানকারীর হাতে লাঞ্চনার শিকার উপজেলা শিক্ষা অফিসার


জামালপুর প্রতিনিধি : জামালপুরে এমপির ভাতিজা পরিচয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নাহিদা ইয়াসমীনকে লাঞ্চিত করেছেন। ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার সকাল ১১টায় উপজেলা শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ে। এ ঘটনায় উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষকদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।
লাঞ্চনার শিকার নাহিদা ইয়াসমীন সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন, শেরপুরের হেলুয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা জামালপুর সদরের ছোনটিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয় অথবা শীলকুড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বদলীর জন্য বিভাগীয় উপ-পরিচালক বরাবরে আবেদন করে। বুধবার সকাল ১১টার দিকে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ে এমপির ভাতিজা পরিচয়ে মতিমিয়া,সহকারী শিক্ষিকা নিউজি আক্তার ও তাঁর স্বামী শাকিল আসে। তারা অনিয়মতান্ত্রিকভাবে জেলা শিক্ষা অফিসে বদলীর প্রস্তাবনা পাঠানোর জন্য চাপ প্রয়োগ করে। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নাহিদা ইয়াসমিন নিয়মবর্হিভুত প্রস্তাবনা পাঠাতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও অশ্লিল আচরন করে লাঞ্চিত করেছেন এমপির ভাতিজা পরিচয়দানকারীরা।
লাঞ্চিতকারীরা অফিস ত্যাগের সময় উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে বান্দরবানে বদলীর হুমকি ও সহকারী শিক্ষা অফিসার জুলফিকার আলীকে দেখে নেয়ার হুমকি দেন।
খবর পেয়ে জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ শহিদুল ইসলাম দ্রুত উপজেলা শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ে ছুটে যান।
এমপির ভাতিজা পরিচয়দানকারী মোঃ মতি মিয়া তার বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নিয়মতান্ত্রিকভাবেই বদলীর প্রস্তাবনার কথা শিক্ষা অফিসারকে বলেছি। লাঞ্চিতের কোন ঘটনা ঘটেনি বলে দাবী করেন তিনি।
জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ শহিদুল ইসলাম বলেন, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার লাঞ্চিতের ঘটনা উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। বদলীর আবেদনকারী নিউজি আক্তার ঘটনার সময় উপস্থিত ছিল বিধায় তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ ব্যপারে স্থানীয় সংসদ সদস্য মোঃ মোজাফফর হোসেনের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, উপজেলা শিক্ষা অফিসারের সাথে যে অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটেছে তা অবগত হয়েছেন। এ ঘটনার সাথে যারাই জড়িত থাক তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে শিক্ষা কর্মকর্তাদের আশ^াস দেয়া হয়েছে।