১০, মে, ২০২১, সোমবার | | ২৮ রমজান ১৪৪২

মাইকেল মধুসূদনের ১৯৪তম জন্মদিন আজ

আপডেট: জানুয়ারি ২৪, ২০১৯

মাইকেল মধুসূদনের ১৯৪তম জন্মদিন আজ


মো:তৌহিদুর রহমান তাহসিন,বিশেষ প্রতিবেদক: আজ বুধবার মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৪তম জন্মদিন। ১৮২৪ সালে ২৫ জানুয়ারি যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলার সাগরদাঁড়ি গ্রামে জন্মগ্রহণ তিনি।মধুসূদন দত্ত বাংলা ভাষায় মহাকাব্য রচনা এবং বাংলা কবিতায় অমিত্রাক্ষর ছন্দ প্রবর্তনের পথিকৃৎ করেছেন। ১৯৭৩ সাল থেকেই এই মধুমেলার আয়োজন করা হয়ে থাকে। এবার সপ্তাহব্যাপি এই মেলা শুরু হয়েছে গত ২১ জানুয়ারি থেকে । জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদেক এ দিন এ মেলার উদ্বোধন করেন। আগামী ২৭ জানুয়ারি মেলা শেষ হবে।

উনিশ শতকের বাঙালি নবজাগরণের অন্যতম পথিকৃৎ মধুসূদন তার অনন্যসাধারণ প্রতিভার দ্বারা বাংলা ভাষার অন্তর্নিহিত শক্তি আবিষ্কার করে এই ভাষা ও সাহিত্যের যে উৎকর্ষ সাধন করেন, এর ফলেই তিনি বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে অমর হয়ে আছেন। বাংলা সাহিত্যে তিনি ‘মধুকবি’ নামে পরিচিত। কবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের অনন্য সাহিত্যকীর্তি আমাদের ভাষা ও সাহিত্যের মহামূল্যবান সম্পদ। পত্রকাব্য, মহাকাব্য, সনেট, নাটক, সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় তার অমর সৃষ্টিসমূহ বাংলা ভাষা ও সাহিত্যকে এক বিশেষ মর্যাদার আসনে আসীন করেছে।


নাটক, প্রহসন, মহাকাব্য, পত্রকাব্য, সনেট, ট্র্যাজেডিসহ সাহিত্যের বিভিন্ন শাখায় তার অমর সৃষ্টি বাংলা ভাষা ও সাহিত্যকে উন্নত মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করেছে।১৮৪৩ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে খ্রিস্টান ধর্ম গ্রহণ করেন কবি।  বিভিন্ন পত্রিকায় ছদ্মনামে কবিতা লিখতে থাকেন। কয়েকটি পত্রিকায় সাংবাদিকতা করেন ও সম্পাদকীয় বিভাগেও কাজ করেন। একই বছর বিয়ে করেন রেবেকা ম্যাকটাভিসকে।

মধুসূদন দত্ত নাট্যকার হিসেবেই প্রথম বাংলা সাহিত্যের অঙ্গনে পদার্পণ করেন। রামনারায়ণ তর্করত্ন বিরচিত `রত্নাবলী` নাটকের ইংরেজি অনুবাদ করতে গিয়ে তিনি বাংলা নাট্যসাহিত্যে উপযুক্ত নাটকের অভাব বোধ করেন। এই অভাব পূরণের লক্ষ্য নিয়েই মধুসূদন নাটক লেখায় আগ্রহী হয়েছিলেন। ১৮৫৯ সালে তিনি রচনা করেন ‘শর্মিষ্ঠা` নাটক। এটিই প্রকৃত অর্থে বাংলা ভাষায় রচিত প্রথম মৌলিক নাটক। ১৮৬০ সালে রচনা করেন দুটি প্রহসন : `একেই কি বলে সভ্যতা` এবং `বুড়ো শালিকের ঘাড়ে রোঁ` এবং পূর্ণাঙ্গ `পদ্মাবতী` নাটক। পদ্মাবতী নাটকেই তিনি প্রথম অমিত্রাক্ষর ছন্দ ব্যবহার করেন। ১৮৬০ সালেই তিনি অমিত্রাক্ষরে লেখেন `তিলোত্তমাসম্ভব` কাব্য। এরপর একে একে রচিত হয় `মেঘনাদ বধ কাব্য` (১৮৬১) নামে মহাকাব্য, `ব্রজাঙ্গনা` কাব্য (১৮৬১), `কৃষ্ণকুমারী` নাটক (১৮৬১), `বীরাঙ্গনা` কাব্য (১৮৬২), চতুর্দশপদী কবিতা (১৮৬৬)।

১৮৭৩ সালের ২৯ জুন মুত্যবরণ করেন মহাকবি মধুসূদন দত্ত।