২১, আগস্ট, ২০২০, শুক্রবার | | ২ মুহররম ১৪৪২

সরিষাবাড়ীতে দাফনের ২২ দিন পর কবর থেকে ব্যবসায়ীর লাশ উত্তোলন

আপডেট: মার্চ ১২, ২০১৯

  • Facebook Share
সরিষাবাড়ীতে দাফনের ২২ দিন পর কবর থেকে ব্যবসায়ীর লাশ উত্তোলন

জামালপুর প্রতিনিধি: জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে দাফনের ২২ দিন পর রহস্যজনকভাবে নিহত ব্যবসায়ী ফজলুল হকের (৪০) লাশ কবর থেকে উত্তোলন করা হয়েছে। আদালতের নির্দেশে ময়না তদন্তের জন্য মঙ্গলবার সকালে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে উপজেলার ভাটারা ইউনিয়নের ফুলদহ গ্রামে নিহতের পারিবারিক কবরস্থান থেকে লাশটি তোলা হয়।

পুলিশ ও পারিবারিক সুত্র জানায়, ফুলদহ গ্রামের কৃষক আব্দুল ওয়াহেদের ছেলে কাঠ ব্যবসায়ী ফজলুল হককে ১৮ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যায় তাঁর বন্ধু গাবতলী বাজারের দোকানদার এরশাদ ব্যাংক থেকে ঋণ উত্তোলনের কাজে যাওয়ার নাম করে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যান। রাতে বাড়িতে খবর যায় যে, তাঁরা জেলা শহরে পৌঁছার আগেই বেলটিয়া (টিউবয়েলপাড়) এলাকায় সিএনজি ও পিকআপ ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে ফজলুল আহত হয়েছেন। তাঁকে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করার পর অবস্থার অবনতি হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠালে পথিমধ্যে তিনি মারা যান। বিষয়টি সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু বলে মনে করে ময়না তদন্ত ছাড়াই পরদিন ১৯ ফেব্রুয়ারি লাশ দাফন করা হয়।

এদিকে ব্যবসায়ীর মৃত্যুর বিষয়টি জনমনে রহস্যের সৃষ্টি হওয়ায় নিহতের স্ত্রী আঞ্জুয়ারা বেগম বাদি হয়ে ফুলদহ গ্রামের মৃত আব্দুস সাত্তারের ছেলে নিহতের বন্ধু এরশাদসহ (৩৫) নামোল্লেখ করে তিনজন ও অজ্ঞাত আরো ৫-৬ জনকে আসামি করে সরিষাবাড়ী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন (যার নম্বর ১, তাং ০১-০৩-১৯ইং)।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই রকিবুজ্জামান তালুকদার জানান, জামালপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট সিআর আমলী আদালতের নির্দেশে থানায় হত্যা মামলাটি রেকর্ড হয়। পরে বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট ফয়সাল তারেক নিহতের লাশ উত্তোলন করে ময়না তদন্তের জন্য আদেশ দেন। এ আদেশের প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার সকালে লাশ উত্তোলন করে জামালপুর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়।

এ সময় সরিষাবাড়ী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলামসহ সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।